নয়াদিল্লি- দিল্লির সংঘর্ষে মৃত্যু হয়েছে পুলিশ কনস্টেবল রতন লালের। এবার আরও এক গোয়েন্দা সংস্থার আধিকারিকের পোড়া দেহ উদ্ধার হল। ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো-তে কর্মরত ওই আধিকারিকের নাম অঙ্কিত শর্মা।

বুধবার সকালে চাঁদবাগ এলাকার একটি নর্দমা থেকে উদ্ধার হয় তাঁর দেহ। দিল্লির যে এলাকাগুলিতে সবচেয়ে বেশি হিংসা চলছে, চাঁদবাগ তার মধ্যে অন্যতম। সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে জানা যাচ্ছে, চাঁদবাগেরই বাসিন্দা ছিলেন অঙ্কিত শর্মা। তাঁর দেহ গুরু তেজ বাহাদুর হাসপাতালে ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ২০১৭-য় ইন্টেলিজেন্স ব্যুরোতে যোগ দিয়েছিলেন তিনি।

ঘটনার পর অঙ্কিতের ভাই অঙ্কুর সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, দাদাকে ছুরি মেরে মৃতদেহটিকে নালায় ফেলে দিয়েছিল দুষ্কৃতিরা। যেই বন্ধু অঙ্কিতকে বাঁচাতে গেছিল, সেও কোনও রকমে প্রাণ বাঁচিয়ে ফিরেছে। মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে চারটের সময় বাড়ি ফেরার পর অঞ্চলে কি অবস্থা দেখতে গিয়েই অপরাধীদের কবলে পড়ে অঙ্কিত। কেউ যাতে অঙ্কিতের পাশে আসতে না পারে, তার জন্যে এক নাগাড়ে গুলি চালায় দুষ্কৃতিরা। অঙ্কিতের বাবা দেবেন্দ্র শর্মা দিল্লি পুলিশে সহকারী সাবইন্সপেক্টর। এই ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। অপরাধীরা সমুচিত শাস্তি পাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

প্রতিক্রিয়া স্বরূপ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এই ঘটনাকে বলেছেন বিরাট ক্ষতি। কেজরিওয়াল বলছেন, এটা বিরাট ক্ষতি। দোষীদের ছাড়া হবে না। ২০ জন ইতিমধ্যেই প্রাণ হারিয়েছেন। দিল্লির মানুষকে এভাবে অশান্তি ভোগ করতে দেখা সত্যিই বেদনাদায়ক।

প্রসঙ্গত সিএএ বিরোধী ও সিএএ সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ থেকে এই হিংসার শুরু হয়। বিজেপি নেতা কপিল মিশ্র বিরুদ্ধে হিংসায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগও ওঠে। এর পরেই হিংসা ভয়াবহ রূপ নিতে থাকে। বুধবার সকাল পর্যন্ত ২০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। আহতের সংখ্যা ১৮৯।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভারত সফরের মাঝেই এই হিংসার শুরু হয়। প্রধানমন্ত্রীও ট্রাম্পের আতিথেয়তায়ে ব্যস্ত ছিলেন। অবশেষে বুধবার নীরবতা ভেঙে নরেন্দ্র মোদী টুইট করেন, শান্তি ও সম্প্রীতি বজায় রাখাই আমাদের মূল লক্ষ্য। আমি দিল্লির ভাইবোনেদের শান্তি ও ভ্রাতৃত্ববোঝ বজায় রাখার আবেদন করছি। শীঘ্রই শান্তি ও স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসা খুব জরুরি।