রাখীর বন্ধনে অটুট সম্পর্ক৷ পরকে আপন করে নেওয়া৷ রবিবার রাখী বন্ধন উৎসব মহাসমারহে পালিত হল রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে৷ জনসংযোগ বাড়াতে রাজনৈতিক দলগুলিও সামিল বন্ধনের উৎসবে৷ ভাতৃত্বের অটুট বন্ধনকে দৃঢ় করতে অনেকে আবার বন্যাবিধ্বস্ত কেরলের জন্য ত্রাণ সংগ্রহ করলেন৷

বাঁকুড়া:
পশ্চিমের জেলা বাঁকুড়াতে এদিন ধুমধাম করে রাখী বন্ধন উৎসব পালন করা হয়৷ বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, সংগঠন, পুলিশ প্রশাসনের পাশাপাশি রাজনৈতিক দল ও তাদের গণ সংগঠনগুলি এদিন জেলা শহর সহ জেলার বিভিন্ন অংশে রাখী বন্ধন উৎসবের আয়োজন করে।

তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে রাখী বন্ধন উৎসব উপলক্ষ্যে বাচ্চাদের নিয়ে একটি পদযাত্রা বের হয়। বিভেদ ভুলে সকল মানুষের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রত ও সংহতি রক্ষায় এই পদযাত্রা বলে আয়োজকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। এদিন পথ চলতি সাধারণ মানুষকে রাখী পরিয়ে শুভেচ্ছা জানান পদযাত্রায় অংশগ্রহণকারী শিশুরা।

বন্যাবিধ্বস্ত কেরল৷ দক্ষিণী রাজ্যের সহায়তায় রাখী বন্ধনের বিশেষ দিনটিকে বেছে নেয় সিপিএমের যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই৷ বাঁকুড়া শহর সহ জেলার ব্লক সদর গুলিতে সাধারণ মানুষের থেকে ত্রাণ সামগ্রী সংগ্রহ করা হয়৷

বারাকপুর:
রাজ্য সরকারের যুব কল্যাণ ও ক্রীড়া দপ্তরের উদ্যোগে বারাকপুর মসজিদ মোড়ে অনুষ্ঠিত হয় সম্প্রীতির রাখি বন্ধন উৎসব। অনুষ্ঠানে ছিলেন স্থানীয় মসজিদের ইমাম, ব্যারাকপুর পৌরসভার পৌরপ্রধান উত্তম দাস, উপ পুরপ্রধান দেবাশিস ঘোষ দস্তিদার সহ ব্যারাকপুর পৌরসভা সব কাউন্সিলররা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।