স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: মারণ ভাইরাস করোনা নিয়ে আতঙ্কিত গোটা দুনিয়া। মারণ ব্যাধি থাবা বসিয়েছে এদেশেও। এমন পরিস্থিতিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় আতঙ্ক ও ভুয়ো খবর ছড়ানোর অভিযোগে রাজ্যের বিভিন্ন অংশ থেকে বেশ কয়েক জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো পোষ্ট দিয়ে ‘আতঙ্ক’ ছড়ানোর অভিযোগ উঠলো বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ এর বিরুদ্ধে।

বাঁকুড়া শহরের বাসিন্দা জনৈক জয়দীপ চট্টোপাধ্যায় জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম সেলে সাংসদ সৌমিত্র খাঁ এর বিরুদ্ধে করোনা নিয়ে ভুয়ো পোষ্ট করে আতঙ্ক সৃষ্টির অভিযোগ দায়ের করেছেন। বিষয়টি স্বীকার করে সাংবাদিকদের হোয়াটসঅ্যাপ বার্তায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শ্যামল সামন্ত লিখেছেন, সাংসদের ভুয়ো ছবি পোষ্টে জনমানসে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে।

অন্যদিকে,বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ এবিষয়ে এক ভিডিও বার্তায় জানিয়েছেন, তার বিরুদ্ধে সাইবার ক্রাইম সেলে মামলার খবর তিনি পেয়েছেন। সংশ্লিষ্ট তদন্তকারী অফিসারকে ‘চ্যালেঞ্জ’ জানিয়ে তিনি বলেন, আপনি প্রমাণ করে দেখান কোনটা ‘ভুয়ো’। একই সঙ্গে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকেও এক হাত নেন তিনি। সাংসদ মুখ্যমন্ত্রীকে ‘মিথ্যেবাদী’ দাবি করে বলেন, আমি কোনও ভুয়ো পোষ্ট দিইনি। যা সত্যি তাই পোষ্ট দিয়েছি। এভাবে তার মুখ বন্ধ করা যাবে না বলেও দাবি করেন তিনি।

অন্যদিকে, ফেসবুকে একটি ভুয়ো ভিডিও শেয়ার করার অভিযোগে গিরিশ পার্ক থানায় তাঁর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় এফআইআর হয়েছে। এরপরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রশাসনকে একহাত নিয়েছেন বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা। সম্প্রতি তিনি ফেসবুক একটি ভিডিও শেয়ার করেন। ভিডিওটিতে দেখা যায়, একজন পুলিশ আধিকারিক সাধারণ মানুষের হাতে আক্রান্ত হচ্ছেন।

ভিডিওটিকে খিদিরপুর অঞ্চল বলে দাবি করেন। পরে পুলিশ অনুসন্ধান করে জানতে পারে ভিডিওটি মুম্বইয়ের। পরে অনুপম ভিডিওটি ডিলিট করে দিলেও গুজব ছড়ানোর অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে গিরিশ প্রার্থনায় অভিযোগ দায়ের করেন এক ব্যক্তি। এরপরই ফেসবুক লাইভে এফআইআর এর প্রসঙ্গ তুলে অনুপম দাবি করেন, দেশের বিপর্যয়ের সময় শুধুমাত্র রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র করেই তাঁর বিরুদ্ধে অকারণে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।