ভোপাল: বিহারে মহাজোটের সমর্থন পাননি সিপিআই প্রার্থী কানহাইয়া কুমার৷ বেগুসরাই থেকে একা লড়ছেন তিনি৷ আরজেডির এই সিদ্ধান্তে হতাশ মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা দিগ্বিজয় সিং৷ লালুর দলের পদক্ষেপকে ‘বড় ভুল’ বলে মন্তব্য করলেন ভোপালের কংগ্রেস প্রার্থী দিগ্বিজয় সিং৷

রাজনৈতিক মহলের জল্পনা ছিল কানহাইয়া কুমার বেগুসরাইয়ের মহাজোটের প্রার্থী হবেন। কিন্তু আরজেডি এবং কংগ্রেস সমঝোতায় পৌঁছলেও সিপিআই এবং সিপিএমকে কোনও আসন ছাড়া হয়নি। তার পরই সিপিআই ঘোষণা করে, মহাজোটের সমর্থন ছাড়াই বেগুসরাইয়ের প্রার্থী হবেন জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের প্রাক্তন সভাপতি কানহাইয়া কুমার।

আরও পড়ুন: মোদীর সভায় বিপুল খরচ, কমিশনের তদন্তের দাবি মমতার

বিহারে জোট হয়েছে কংগ্রেস ও আরজেডির৷ এদিন দিগ্বিজয় সিং বলেন, ‘‘আমি কংগ্রেস দলের মধ্যেও বেশ কয়েকবার আলোচনা করছি৷ বলেছি আরজেডি বড় ভুল করে ফেলল৷’’ মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দাবি করেন, মহাজোটে যাতে সিপিআইকে সামিল করা যায় তার চেষ্টাও করেছিলেন তিনি৷ কিন্তু সফল হননি৷ ৮ও ৯ মে ভোপালে প্রচারে যাবেন বেগুসরাইয়ের সিপিআই প্রার্থী কানহাইয়া৷ তাতে নিজের উচ্ছাস প্রকাশ করেন দিগ্বিজয়৷

আরও পড়ুন: মোশারফ জমানার বিতর্কিত গোয়েন্দা প্রধানকেই মন্ত্রী করলেন ইমরান

বিহারে ৪০টি লোকসভা আসন। তার মধ্যে ১৯টিতে আরজেডি এবং ৯টি আসনে কংগ্রেস লড়ছে। বাকি ১২টি আসনে লড়াই করছেন শরিকরা। এই মহাজোটে সিপিআইএমএল ছাড়া আর কোনও বাম প্রার্থীকে সামিল করা হয়নি৷ কারণ হিসাবে আরজেডির তরফে বলা হয়, বিহারে কোনও বাম দলের জনভিত্তি নেই। এমনকি কানহাইয়া কুমারের প্রার্থী পদ নিয়েও তেজস্বী যাদব আপত্তি করেন।

আরজেডি নেতৃত্ব মনে করেন, বেগুসরাইয়ে মুসলিম প্রার্থীরাই সুবিধা পাবেন। তাই তনভির হাসানকে বেগুসরাইয়ের প্রার্থী করে তারা। কিন্তু দিগ্বিজয়ের মন্তব্যেই স্পষ্ট বেগুসরাইয়ে লন্ঠন জ্বলার সুযোগ প্রায় নেই৷ তাই আগেভাগেই সাফাই দিয়ে রাখলেন তিনি৷