স্টাফ রিপোর্টার, জলপাইগুড়ি: জলপাইগুড়ি লোকসভা কেন্দ্র বিজেপি প্রার্থী বদল হওয়ার সম্ভাবনাকেই কার্যত শিলমোহর দিলেন মুকুল রায়৷ মঙ্গলবার বিজেপি নেতা এবং রাজ্য বিজেপি তরফে নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা মুকুলবাবু বলেন, ‘‘ডা. জয়ন্ত রায়, যিনি একজন রাজ্য সরকারি ডাক্তার, নিজের দফতরে ইস্তফা দিতে পারেননি৷ রাজ্য সরকার তাঁর ইস্তফা পত্র গ্রহণ করেনি৷ তার জায়গায় আমাদের ড‍্যামি প্রার্থী রয়েছে। ওই ড্যামি প্রার্থী মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন। প্রয়োজনে ওই প্রার্থীই নির্বাচনে লড়াই করবেন।’’

পাশাপাশি মুকুল রায় আরও বলেন, ‘‘উত্তরবঙ্গে বিজেপি এবার খুব ভালো ফল করবে। আমি জলপাইগুড়িতে থেকে বেশকিছু রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করব।’’

রাজ্য বিজেপির একটি অংশ মনে করে দক্ষিণবঙ্গের তুলনায় উত্তরবঙ্গে বিজেপির বেশি আসনে জেতার সম্ভাবনা রয়েছে৷ কোচবিহার জলপাইগুড়ি এবং আলিপুরদুয়ারে গত কয়েক বছর ধরেই সংগঠনকে মজবুত করেছে গেরুয়া শিবির৷ পঞ্চায়েত ভোটে নজিরবিহীন সন্ত্রাসের ঘটনার মুখেও উত্তরবঙ্গ থেকে ভালো ফলাফল করেছে বিজেপি৷ অমিত শাহ থেকে নরেন্দ্র মোদী, দিলীপ ঘোষ থেকে মুকুল রায় — বিজেপি কেন্দ্র রাজ্যের নেতারা উত্তরবঙ্গেই পাখির চোখ দেখছেন৷

তবে ইতিমধ্যেই কোচবিহারের প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ উঠেছে৷ কোচবিহারেরই বিজেপি সর্মথকরা নিশীথের বিরুদ্ধে ফেসবুকের দেওয়ালে পোস্টারে সেঁটেছেন৷ জেলা পার্টিকে বাড়তি তৎপর হয়ে বলতে হয়েছে সর্বসম্মতিক্রমেই নিশীথের নাম রাজ্য এবং কেন্দ্র পার্টির কাছে গিয়েছে৷ তবে গোঁদের উপর বিষ ফোঁড়া হয়েছে নিশীথের অতীত ইতিহাস৷ তৃণমূল কংগ্রেস ইতিমধ্যেই বিজেপির ওই প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানিয়ে বলেছে, তিনি একজন ফৌজদারি অভিযোগে অভিযুক্ত৷

নিশীথ প্রামাণিকের ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে জলপাইগুড়ি প্রার্থী ডা. রায়ের প্রার্থীপদ নিয়েও রীতিমত চাপে রয়েছে রাজ্য বিজেপি৷ জলপাইগুড়ি প্রার্থী বদল হোক চায় না বিজেপি নেতৃত্ব৷