সম্প্রতি দামোদর নদের জলে বিষাক্ত রাসায়নিক মেশানোর ছবি সামনে এসেছে। একই কারণে মাছের মড়ক দেখা গিয়েছিল সাঁতরাগাছি ঝিলে। পরিবেশপ্রেমীরা ঘটনার প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছিলেন। মন্ত্রী হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। কাজও হচ্ছে বলে দাবি করেছেন চন্দ্রকান্ত সিনহা। জেনে নিন কি ক্ষতি হচ্ছে এই মাছ চাষিদের কীটনাশক প্রয়োগের ফলে।

মাছ আমাদের প্রাণিজ আমিষের অন্যতম উৎস। কর্মসংস্থান, বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন এবং পুষ্টি সরবরাহে মাছের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। একই পুকুরে নানা জাতের মাছ চাষ করা যায়, খাল ও ডোবায় মাছ চাষ করা যায়, আবার চৌবাচ্চায়, খাঁচায় মাছের চাষ করা যায়। কোনো নির্দিষ্ট জলাশয়ে পরিকল্পিত উপায়ে স্বল্পপুঁজি, অল্পসময় ও লাগসই প্রযুক্তির মাধ্যমে মাছের বিভিন্ন নিয়ম মেনে প্রাকৃতিক উৎপাদনের চেয়ে অধিক মাছ উৎপাদনই মাছ চাষ। মাছ চাষে লাভবান হতে হলে মাছ চাষ পরিকল্পনা থেকে শুরু করে বাজারজাত করা পর্যন্ত

প্রতিটি পর্বে মাছ চাষিকে বিশেষ কিছু নিয়মকানুন মেনে চলতে হয়। সেই সমস্ত নিয়ম ভেঙে বেশি রাসায়নিক মাছ চাষ করলে প্রথমে মাছ যেমন অস্বাস্থ্যকর হবে পাশাপাশি মাছচাষের জন্যও তা অত্যন্ত ক্ষতিকর। পুকুরের স্বাভাববিক পরিবেশ নষ্ট হয় ফলে পরবর্তী মাছ চাষে মাছেদের জন্য প্রাকৃতিক খাবার কম ও অস্বাস্থ্যকর হয় ফলে মাছের বৃদ্ধি ব্যহত হয়ে মাছচাষীরা ক্ষতির স্বীকার হন। এভাবে মাছ মারলে অনেক কুফল হতে পারে।

১) পুকুরে কীটনাশক প্রয়োগের ফলে পুকুরের বাস্তুতন্ত্রের উপর বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয় এবং পুকুরের উর্বরতা নষ্ট হয়।

২)পুকুরের জলে কীটনাশক থাকলে তা স্বাভাবিক ভাবেই মাছের শরীরে প্রবেশ করে জমা হতে থাকে। ঐ মাছ খাদ্য হিসাবে গ্রহনের সঙ্গে সঙ্গে কীটনাশকটি মানুষের শরীরে প্রবেশ করে এবং মানুষের দেহে চর্বি জাতীয় টিস্যুতে জমা হয়। শরীরে জমা হতে থাকা এই সব বিষের ক্রিয়ায় মানুষের স্নায়ুতন্ত্র আক্রান্ত হয়ে পড়ে।

৩) পুকুরের জলে কীটনাশক প্রয়োগ করে মাছ মারার পর ঐ পুকুরে মাছ ছাড়লে মাছের বৃদ্ধি কমে যাচ্ছে। কারণ কীটনাশক প্রয়োগের কয়েক মাস পর তা মারণ মাত্রায় না থাকলেও কিছু মাত্রায় পুকুরে থাকে এবং পুকুরের মাছের প্রাকৃতিক খাদ্য উৎপাদনে বাধা সৃষ্টি করে। এছাড়া মাছের শরীরেও এই অবশিষ্ট কীটনাশক প্রবেশ করে বিভিন্ন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। যদিও মাছ বেঁচে থাকে কিন্তু তাদের বৃদ্ধি ভাল হয় না এবং জননাঙ্গ ঠিকমত পূর্ণতা পায় না।

পুকুরে কীটনাশক প্রয়োগের কুফল

পুকুরের বাস্তুতন্ত্রের ভারসাম্য নষ্ট ,
পুকুরের মাছের প্রাকৃতিক খাদ্যকণার উৎপাদন ব্যাহত,
পুকুরের জল ও মাটির রাসায়নিক পরিবর্তন,
পুকুরের মাছের বৃদ্ধি ব্যাহত ও জননাঙ্গের অপূর্ণতা,
কীটনাশক যুক্ত মাছ গ্রহণের ফলে মানুষের স্নায়ুতন্ত্র আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা।

মাছ চাষের জন্য পুকুর নির্বাচন একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়
১. পুকুরটি খোলামেলা রোদ্রউজ্জ্বল জায়গায় এবং বাড়ির আশপাশে হতে হবে যেন নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায়;
২. মাটির গুণাগুণ পুকুরের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণত দো-আঁশ, এঁটেল দো-আঁশ ও এঁটেল মাটি পুকুরের জন্য ভালো;
৩. পুকুরের আয়তন কমপক্ষে ১০ শতাংশ হতে হবে। ৩০ শতাংশ থেকে ৫০ শতাংশ আকারের পুকুর মাছ চাষের জন্য বেশি উপযোগী;
৪. পুকুরের গভীরতা ২-৩ মিটার রাখতে হবে এবং বছরের পুরো সময় পানি থাকতে হবে;
৫. পুকুর পাড়ে বড় গাছ বা ঝোপঝাড় থাকা যাবে না। বিশেষ করে পাতাঝরা গাছ রাখা যাবে না।