প্রতীকী ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: কোচবিহার জেলা বিজেপি সভাপতি ও দলের নেতা কর্মীদের উপর হামলার চালানোর অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে৷ ঘটনাটি ঘটেছে, দিনহাটার ওকরাবাড়ি এলাকায়৷ এই ঘটনায় বিজেপি কর্মিদের বাইক ও বিজেপি জেলা সভাপতির গাড়িটিও ভাঙচুর করা হয়েছে বলে বিজেপির তরফ অভিযোগ করা হয়েছে৷

বিজেপির অভিযোগ, আজ দিনহাটার ওকড়াবাড়িতে রামপ্রসাদ এলাকায় বিজেপি কর্মী তাপস সরকারের বাড়িতে কর্মী সভার আয়োজন করা হয়েছিল৷ এই সভায় উপস্থিত হন জেলা বিজেপি সভাপতি নিখিল রঞ্জন দেসহ সভাপতি ব্রজ গোবিন্দ বর্মণ, সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি আনোয়ার হোসেন, স্থানীয় মণ্ডল সভাপতি ডালিম সিংহ রায় সহ বিজেপি কর্মীরা৷ বৈঠক শুরুর আগে সেখানে হামলা করে বেশ কিছু তৃণমূল কংগ্রেস সমর্থক বলে অভিযোগ৷

বৈঠকের জন্য রাখা চেয়ার টেবিল ভাঙচুর করে, মারধর করা হয় সহ সভাপতি ব্রজ গোবিন্দ বর্মণ, সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি আনোয়ার হোসেন, স্থানীয় মণ্ডল সভাপতি ডালিম সিংহ রায়কে৷ বাড়ির বাইরে থাকা বাইক ও গাড়িতে ভাংচুর চালানো হয় বলে অভিযোগ৷ এর পরেই কোন ক্রমে সেখান থেকে বেড়িয়া আসেন বিজেপি নেতারা৷ এই খটনায় জেলা পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ জানিয়েছে বিজেপি৷

জেলা সভাপতি নিখিল রঞ্জন দে বলেন, ‘‘রাজ্যের গণতন্ত্র বিপন্ন৷ মিটিং মিছিল করার অধিকার নেই বিজেপির৷’’ যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস দিনহাটার বিধায়ক উদয়ন গুহ দাবি, বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ফলেই এই ঘটনা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।