স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সাঁতরাগাছি স্টেশনে দুর্ঘটনা৷ স্টেশনে একই সঙ্গে তিনটি ট্রেন আসায় ঘোষণায় হুড়োহুড়ি৷ পদপৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় দু’জনের৷ আহত ১২ জন৷ দুর্ঘটনায় মৃত ও আহতদের ক্ষতিপূরণের ঘোষণা করল রেল৷ দুর্ঘটনার তদন্তেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷

আরও পড়ুন: রেলের গাফিলতিতেই সাঁতরাগাছি স্টেশনে দুর্ঘটনা: মুখ্যমন্ত্রী

রেলের তরফে এক প্রেস বিবৃতীতে জানানো হয়েছে সাঁতরাগাছি স্টেশনে দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে কালাকান্ত সিং ও তাসের সর্দারের৷ বছর ৩২এর কালাকান্ত পূর্ব মেদিনীপুরের কোলাঘাটের রায়ন অঞ্চলের বাসিন্দা৷ মৃত তাসের সর্দারের বাড়ি মুর্শিদাবাদ জেলার হরিহরপাড়া থানা এলাকার নাসেরপুরে৷ মৃত দুজনের পরিবারকেই পাঁচ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেবে রেল৷

মঙ্গলবারের দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন ১৪ জন৷ এরা হলেন, গৌরী হেম্ব্রম, অর্ণা সাউ, আকাশ সাউ, সেখ রাহুল আমিন, অমরেন্দ্রনাথ দত্ত, অনীশ সোম, শেখ আক্রামুল হক, গৌরনিতাই সাহা, শিল্পা ওঁরাও, হনুমন্ত সাউ, কিরণ সাউ ও আশিস সাঁতরা৷ এদের মধ্যে জু’জন শিশু রয়েছেন৷ আহত ১২জনই ভরতি হাওড়া জেলা হাসপাতালে৷ এদের মধ্যে বেশি আহতদের মাথাপিছু এক লক্ষ টাকা ও কম আহতদের দেওয়া হবে পঞ্চাশ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ৷

এদিন সাঁতরাগাছি স্টেশনে যান মুখ্যমন্ত্রী৷ দুর্ঘটনার জন্য রেলের গাফিলতি ও সমন্বয়ের অভাবকেই দায়ী করেন তিনি৷ প্রশাসনিক তদন্তের সঙ্গেই ঘোষণা করেন রাজ্য সরকারের তরফে মৃতদের পরিবারকে পাঁচ লক্ষ ও আহতদের এক লক্ষ করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে৷

আরও পড়ুন: রেলের গাফিলতিতেই দুর্ঘটনা, মানলেন দিলীপ ঘোষ

টাকা থাকলেও রেল যাত্রী সুরক্ষায় আপোস করছে বলে অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ কেন পরিকাঠামো নির্মাণে রেল উদ্যোগী হয় না তা নিয়েও প্রস্ন তোলেন তিনি৷ পাসাপাশি জানান রেল চাইলে সবধরণের সাহায্যের জন্য রাজ্য প্রস্তূত৷ সাঁতরাগাছি স্টেশন থেকে মমতা সোজা চলে যান হাওড়া হাসপাতালে৷ খোঁজ খবর নেন আহতদের শারীরিক অবস্থা নিয়ে৷ কথা বলেন

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও