বেজিং: ডোকলাম নিয়ে এতদিন ছিল ভারত আর চিনের মধ্যে ছিল শুধুই সংঘাতের সম্পর্ক। চিনা সংবাদমাধ্যম গ্লোবাল টাইমসে শুধু একের পর এক হুঁশিয়ারি। যুদ্ধের হুংকারও দিয়েছে প্রতিনিয়ত। অবশেষে মিটেছে সমস্যা। এবার সুর বদলেছে চিনের। কার্যত ভারতের প্রশংসাই করল গ্লোবাল টাইমস। এক আর্টিকলে গ্লোবাল টাইমস ভারতের হিন্দুত্ববাদের প্রশংসা করেছে। তাদের মতে, হিন্দুত্ববাদ নাকি চরমপন্থীদের ইসলামের বিস্তার কমিয়েছে।

চিনের ওই সংবাদপত্রে বলা হয়েছে, ‘ভারতে বেশিরভাগ মুসলিম মৌলবাদের থেকে দূরে রয়েছে। যে সংখ্যাটা বিশ্বের অন্যান্য দেশে অনেক বেশি। এটা কিভাবে সম্ভব?’ এশিয়ার অন্যান্য দেশে কিভাবে মৌলবাদ বিস্তারলাভ করেছে সেটাও উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়েছে, ফিলিপিন্সে আইএস সমর্থিত ইসলামিক সংগঠন ব্যাপক সন্ত্রাস চালায়, দক্ষিণ থাইল্যান্ডে প্রত্যেক সপ্তাহেই জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটে। ভারতে সেই চরমপন্থা মাথাচাড়া দিতে পারেনি বলেই মত চিনের।

আরও পড়ুন: তালাকে দ্বিখণ্ডিত মুসলিম সমাজকে জুড়তে তৎপর সিদ্দিকুল্লা

গ্লোবাল টাইমস বলছে, ‘ভারত মুসলিম চরমপন্থীদের বৃত্তটা ভেঙে দিতে সক্ষম হয়েছে। এশিয়া জুড়ে মৌলবাদীরা একটি বৃত্ত তৈরি করেছে। যার মধ্যে রয়েছে ফিলিপিন্স, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ থাইল্যান্ড, দক্ষিণ মায়ানমার, বাংলাদেশ, পাকিস্তান। সেখানে অন্যান্য ধর্মের মানুষের অবস্থা বিপজ্জনক। তারা বারবার আক্রান্ত হচ্ছে। কিন্তু ভারতের অবস্থা কিছুটা ভালো।’

ভারত যেভাবে ইসলামিক চরমপন্থা আটকেছে, তাতে এই দেশের মাথা বিশ্বের কাছে উঁচু হয়েছে, এমনটাই উল্লেখ করা হয়েছে। সেইজন্যই আজ ভারত আমেরিকা, জাপান, রাশিয়ার পাশে দাঁড়াতে পারে।

তবে হঠাৎ ভারতের এই প্রশংসা, মোদীর চিন সফরের আগে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে। গত জুন মাসেই এক আর্টিকলে গ্লোবাল টাইমস বলেছিল, এই হিন্দুত্ববাদই নাকি ভারত আর চিনের মধ্যে দূরত্ব তৈরি করছে।

আরও পড়ুন: মন্দিরে কেন গান শোনা যাচ্ছে না? লাউডস্পিকার উপহার দিলেন এক মুসলিম বন্ধু