নয়াদিল্লি: ২৩ জানুয়ারি নেতাজির জন্ম জয়ন্তীতে কলকাতা এসে শ্রদ্ধাদানের পর ফিরে গিয়ে এই সফরের একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রাজ্যকে ধন্যবাদ জানিয়ে ওই ভিডিওটি পোস্ট করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

শনিবার কলকাতায় পরাক্রম দিবস কর্মসূচির মূল আলোচনার পাশাপাশি, ভিডিওটিতে প্রধানমন্ত্রী ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হলে প্রধানমন্ত্রী মোদীর বক্তৃতার কিছু কথা এবং নেতাজির প্রতি তাঁর শ্রদ্ধাঞ্জলির মুহূর্ত-ও রয়েছে।

আরও পড়ুন – ‘তাণ্ডব’ নিয়ে ফের বিতর্ক, ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাতকারীদের জিভ ছিঁড়ে নিলে পুরস্কারের ঘোষণা কর্ণি সেনার

প্রধানমন্ত্রী মোদী তার ভাষণ এবং ভিডিওতে বলেছেন, “১২৫ বছর আগে এই দিনে ভারতে এক সাহসী পুত্রের জন্ম হয়েছিল যিনি এক স্বাধীন ভারতের স্বপ্নকে নয়া দিক দিয়েছিলেন। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, “নেতাজির মতো দৃঢ় উদ্দেশ্য সম্পন্ন লোকের কাছে কিছুই অসম্ভব ছিল না।”

 

তিনি বলেছেন, “আজ নতুন ভারতে সংঘটিত ইতিবাচক পরিবর্তনগুলি নেতাজি সুভাষ বোসকে অত্যন্ত গর্বিত করবে। দেশ যে অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে স্বনির্ভর হয়ে উঠছে, বিশ্বব্যাপী সংস্থাগুলিতে ভারতীয়দের অংশগ্রহণের পাশাপাশি শিক্ষা এবং চিকিত্সা খাতে ভারতীয় কর্মীদের দেখে নেতাজির মনে কী অনুভূত হত? নেতাজি অত্যন্ত গর্বিত হত।”

উল্লেখ্য, শনিবার বেলা ৩ টে নাগাদ কলকাতা বিমান বন্দরে পা রাখেন প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে করে রেস কোর্সে আসেন প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে নেতাজি ভবনে পৌঁছে যান মোদী। নেতাজি ভবন ঘুরে দেখেন প্রধানমন্ত্রী। নেতাজির স্মৃতি বিজড়িত সমস্ত জায়গা ঘুরে দেখেন প্রধানমন্ত্রী। এরপরেই ন্যাশনাল লাইব্রেরিতে পৌঁছন নরেন্দ্র মোদী।

আরও পড়ুন – ‘সুদীপ্ত সেন মমতা আর ভাইপোর প্রোডাক্ট’, সারদা-কর্তার চিঠি প্রসঙ্গে সরব জয়প্রকাশ

ন্যাশনাল লাইব্রেই থেকে তিনি যান ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে। সেখানে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, আমার কাছে আবেগঘন মুহূর্ত। ছোটবেলা থেকে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোসের নাম কানে আসতেই শক্তি পেতাম।

তিনি বলেন, ১২৫ বছর আগে দাসত্বের অন্ধকারে চেতনার জন্ম হয়েছিল। দুনিয়ার শক্তিশালী শাসককে বলতে পেরেছিলেন, আমি তোমার কাছ থেকে স্বাধীনতা চাইব না। ছিনিয়ে নেব। আজকের দিনেই নেতাজি সুভাষের জন্ম হয়নি, আত্মগৌরবের জন্ম হয়েছিল। ১২৫তম জন্মজয়ন্তীতে তাঁকে প্রণাম করছি। বালক থেকে ত্যাগ ও তপস্যার মাধ্যমে নেতাজি হয়েছিলেন এই ভূমিকে। আমি এই পুণ্যভূমিকে প্রণাম করছি।

এবার থেকে প্রত্যেক বছর নেতাজির জন্মদিনে পরাক্রম দিবস পালন করা হবে বলে এদিন ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, পরাক্রম এবং প্রেরণার প্রতীক নেতাজি, এমনটাই মনে করেন তিনি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।