নয়াদিল্লি: রবিবার ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে FATF বৈঠক। আর আজকের এই বৈঠকে ভাগ্য নির্ধারন হবে পাকিস্তানের। সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, আজকের এই বৈঠকে ফ্যাট সিদ্ধান্ত নেবে পাকিস্তানকে কালো তালিকার অন্তর্ভুক্ত করা হবে কিনা। জানা গিয়েছে, গত বছর জুন মাসে ফ্যাটের সিদ্ধান্তে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকায় ফেলা হয়। এবার সেই তালিকা থেকে সরিয়ে ইমরান খানের দেশকে কালো তালিকা ভুক্ত করে দেওয়া হবে কিনা সেই নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে রাজনৈতিক চর্চা তুঙ্গে।

জানা গিয়েছে, গত সেপ্টেম্বর মাসের ১৮ তারিখ শেষ হওয়া একটি বৈঠকে ফ্যাটে বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছিল, পাকিস্তান, ইরান সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশগুলি চরম অর্থনৈতিক সংকটে ভুগছে। এমতঅবস্থায় পাকিস্তানকে যদি কালো তালিকাভুক্ত করা হয় তাহলে বিশ্ব অর্থনীতির বাজারে বড়সড় ধাক্কা খাবে ইমরানের দেশ। এমনটাই খবর।

ফ্যাটের এই বৈঠকে যোগ দিতে পাক ফেডারেল মন্ত্রী আহমেদ আজহারের নেতৃতে ইতিমধ্যে প্যারিস গিয়ে পৌঁছেছেন পাকিস্তানের পাঁচ মন্ত্রী। সরকারি সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৯ সালের শুরুতে ফ্যাটের প্রেসিডেন্ট মার্শাল বিলিংগস্লিয়া বলেছিলেন, সন্ত্রাসদমন সহ অন্যান্য বিষয়ে পাকিস্তান ফ্যাটের নিয়ম মেনে চলছেনা। ফলে আন্তর্জাতিক মহলে পাকিস্তানের পাশে দাঁড়াতে চাইছেনা কোনও দেশই। এমত অবস্থায় আজ যদি পাকিস্তানকে গ্রে লিস্ট থেকে বাদ দিয়ে কালো তালিকায় ফেলা হয় তাহলে অর্থনীতিতে ভরাডুবির মুখে পড়বে পাকিস্তান। এমনটাই মনে করা হচ্ছে রাজনৈতিক মহলের তরফে।

‘ফ্যাটে’ হল ত্রিশ বছরের পুরনো একটি আর্থিক সংগঠন। সারা বিশ্বের সমস্ত দেশগুলির অর্থনীতির উপর নজর এবং কাজ করে থাকে এই সংস্থা। জানা গিয়েছে, এর আগেও এশিয়ার প্যাসেফিক সম্মেলন এবং অগস্ট মাসে অস্ট্রেলিয়ায় বৈঠকের সময় ফ্যাট জানিয়েছিল, জঙ্গি দমন, সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপ বন্ধ সহ একাধিক বিষয়ে পাকিস্তান ভালো কাজ করছেনা। এমনকি ফ্যাটের রিপোর্টে বলা হয়েছিল, ২৬/১১ এর হামলার মাস্টার মাইন্ড হাফিজ সৈয়দের বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ নেয়নি পাকিস্তান। এমনকি তাঁদের দেশ এখনও বিভিন্ন জঙ্গিসংগঠনকে অর্থসাহায্য করে যাচ্ছে বলে দাবি করা হয়েছে।

নিজেদের সপক্ষে জঙ্গি দমন এবং অন্যান্য বিষয় নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে জোরালো প্রমান পেশ করতে পারেননি ইমরান খান। ফলে গত বছর ফ্যাটের তরফে পাকিস্তানকে ধূসর তালিকাভুক্ত করে দেওয়া হয়। যার ফলে পাকিস্তান প্রায় ১০ বিলিয়ন আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়। ফের আজকের বৈঠকের পরে পাকিস্তানকে যদি কালো তালিকা ভুক্ত করা হয় তাহলে সেটা যে পাকিস্তানের পক্ষে খুব একটা শুভলাভ হবেনা তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন ইমরান খান।