ম্যানিলা: ফিলিপিন্সের ক্যাথলিক চার্চ বিস্ফোরণ ঘটনার দায় স্বীকার করল আইএস জঙ্গিরা৷ রবিবার রাতে এই জঙ্গি সংগঠনটি দায় স্বীকার করেছে৷ তাদের এই স্বীকার করে নেওয়ার আন্তর্জাতিক মহলে রীতিমতো হইচই পড়েছে৷ বেশ কিছুদিন চুপ থাকার পর ফের আইএস জঙ্গিরা সক্রিয় হয়ে ওঠায় নড়েচড়ে বসেছে মার্কিন প্রশাসনও৷

রবিবার এশিয়ার মাটিতে সাম্প্রতিক সময়ে সব থেকে বড় নাশকতার সাক্ষী থাকে দ্বীপরাষ্ট্র ফিলিপিন্স৷ দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের জোলো দ্বীপের রোমান ক্যাথলিক ক্যাথিড্রালে পরপর বিস্ফোরণ ঘটানো হয়৷ এর জেরে প্রার্থনায় উপস্থিত অনেকের মৃত্যু হল৷ প্রাথমিকভাবে ২১ জনের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া যায়৷ জখম হয় আরও ৫০ জন৷ তাদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক৷

সংবাদ সংস্থা এএফপি এবং ফিলিপিন্সের স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে নাশকতার পর রক্তাক্ত গির্জার ছবি৷ সংবাদে বলা হয়েছে, রবিবার খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীরা তাঁদের বিশেষ প্রার্থনার জন্য গির্জায় জড় হয়েছিলেন৷ তখনই জোড়া বিস্ফোরণ ঘটানো হয়৷ প্রথম বোমাটি বিস্ফোরণ হওয়ার পরেই গির্জা সংলগ্ন পার্কিং লটে আরও একটি বোমা ফাটানো হয়৷ এতে কয়েকজন নিরাপত্তারক্ষীর মৃত্যু হয়েছে৷

বিস্ফোরণে পরেই এই ঘটনাটি প্রাথমিকভাবে সন্দেহের তির ছিল জঙ্গি গোষ্ঠী আবু সায়াফের দিকেই৷ কারণ তারাই এই দ্বীপ রাষ্ট্রে নিজেদের ঘাঁটি তৈরি করেছে৷ সংগঠনটি ইসলামিক স্টেটের হয়েই নাশকতা ঘটায়৷ তাই এদিনের বিস্ফোরণে আইএস পরিকল্পিত বলেই মনে করা হচ্ছে৷ আর রাতেই ঘটনার সমস্ত দায় নেয় আইএস জঙ্গিরা৷

প্রসঙ্গত, ফিলিপিন্সের মিন্দানাও দ্বীপে রয়েছে এই জঙ্গিদের ঘাঁটি৷ সেখান থেকে তাদের সম্পূর্ণ উচ্ছেদ করতে সরকার লাগাতার চেষ্টা করছে৷ হয়েছে সেনা অভিযানও৷ জোলো দ্বীপের গির্জায় হামলার ঘটনা ঘটেছে সেই দ্বীপটি দীর্ঘদিন ধরেই আবু সায়াফ সহ উগ্র ইসলামিক বিভিন্ন গোষ্ঠীর শক্ত ঘাঁটি।