ওয়াশিংটন: পূর্ণ আইনে শাস্তি হোক হাফিজ সঈদের। মুম্বই হামলার মাস্টারমাইন্ডের বিরুদ্ধে পাকিস্তান কোনও প্রমাণ না খুঁজে পাওয়ার পরই একথা জানিয়ে দিল মার্কিন প্রশাসন। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী সাদিক খান আব্বাসির মন্তব্যের পরই মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের মুখপাত্র হিথার নয়ের্ত বলেন, ‘আমেরিকা বিশ্বাস করে যে হাফিজ সঈদের শাস্তি হওয়া প্রয়োজন, আর এব্যাপারে পাকিস্তানকে সতর্কও করা হয়েছে।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি পূর্ণ আইন প্রয়োগ করে হাফিজ সঈদের শাস্তি হওয়া উচিৎ। জঙ্গিগোষ্ঠী হিসেবে চিহ্নিত লস্কর-ই-তইবার সঙ্গে যোগ রয়েছে তার। পাকিস্তানের সরকারকে একথা স্পষ্টভাবে জানানো হয়েছে।’

মঙ্গলবার পাকিস্তানের জিও টিভি-তে এক অনুষ্ঠানে হাফিজ সঈদকে ‘সাহিব’ সম্বোধন করে পাক প্রধানমন্ত্রী বলেন, হাফিজ সাহিবের বিরুদ্ধে কোনও মামলা নেই। মামলা থাকলেই তবেই তো ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

সম্প্রতি আমেরিকা জানিয়েছে, সন্ত্রাসবাদীদের দমন না করলে কোনও পাকিস্তানকে আর্থিক সাহায্য করা হবে না৷ এরপর বেশ কিছু জঙ্গি সংগঠনকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে পাকিস্তান৷ তার মধ্যে হাফিজ সইদের সংগঠন জামাত-উদ-দাওয়াও ছিল৷ কিন্তু এরপরই মানহানির মামলা করেন সঈদ৷ আর এখন তো খোদ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীই তাকে ক্লিনচিট দিয়ে দিয়েছেন৷ বলেছেন, যখন কারোর বিরুদ্ধে কোনও মামলা নেই, তখন নির্দিষ্ট সেই ব্যক্তির বিরুদ্ধে কী করে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব?