ক্যানবেরা: হঠাৎ যদি আপনি একটি আরশোলা দেখেন কী করবেন? যদি দেখেন এটা একটা ‘অস্বাভাবিক বড়’ আরশোলা। তাহলেই বা কী করবেন? আমাদের মধ্যেই অনেকেই হয়তো লাফিয়ে উঠে চিৎকার করে বাড়ি মাথায় তুলবেন। আবার অনেকে এই আরশোলা নিধনের জন্য সেটিকে কিছু দিয়ে মারতে যাবেন। কিন্তু এক ছাত্র সেসবের ধার দিয়েই গেলেন না। আরশোলা মারতে তিনি সাহায্য চাইলেন অন্য লোকের!

অন্য লোকের সাহায্য চাওয়াই যায়। এতেও অস্বাভাবিকতার কিছু নেই। কিন্তু যদি শোনেন, এই কাজের জন্য দেওয়া হবে এইউডি ২০ মুদ্রা, তবে কিন্তু আপনি অবাক হতে বাধ্য হবেন। কারণ এই এইউডি ২০ মানে ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় হাজার টাকার কাছাকাছি (৯৫৭ টাকা)। আরশোলা দেখে ওই ছাত্র এতটাই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন যে, তিনি বিজ্ঞাপন দেন, যে এই ‘অস্বাভাবিক বড়’ আরশোলা মারতে পারবেন, তাঁকে ওই ৯৫৭ টাকা পুরষ্কার দেবেন তিনি।

এ ঘটনা ঘটেছে অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনে। ২৪ বছরের ভার্গাব চাভদা যিনি কিনা অস্ট্রেলিয়ায় থেকে পড়াশোনা করছেন, তিনি যখন সোমবার বাড়ি ফিরে আসেন তখন রীতিমতো শকড হয়ে যান। তাঁর ভাষায়, “কিচেনে ছিল একটা অস্বাভাবিক বড় আরশোলা”।

এমনিতেই আরশোলাকে একেবারেই না পসন্দ প্রাণীর তালিকায় রাখেন ভার্গাব। সেই তিনিই যখন রান্নাঘরে খাবার আনতে ঢোকেন, তখন দেখেন ঘরময় দাপিয়ে উড়ে বেড়াচ্ছে আরশোলাটি। অবশেষে রাত ১১ টার সময় গামট্রি-তে বিজ্ঞাপন দেন তিনি। এই আরশোলা মারতে ৯৫৭ টাকা অফারও করেন! বিজ্ঞাপনে তিনি লেখেন তাঁর খিদে পেয়েছে। তাই কেউ জেন দ্রুত এই আরশোলা মারার জন্য এগিয়ে আসেন। এছাড়া বিজ্ঞাপনে তিনি বলেন, ওই আরশোলা মারার যাবতীয় সরঞ্জাম যেন নিয়ে আসা হয়, যেমন স্প্রে, ইত্যাদি। কারণ, হিসেবে তিনি জানান, তাঁর বাড়িতে জামা, ঝাঁটা, চপ্পল ছাড়া আরশোলা ছাড়া আর কিছুই নেই।

একটি সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানান, “এটা আমাকে মারাত্মক ভাবে ভীত করে তুলেছে। আমার খাবার ফ্রিজে রয়েছে। কিন্তু আমি ওই আরশোলার সঙ্গে কোনও ভাবেই যুদ্ধ বা কোনও কাজই করতে চাইনা। ” ভার্গবের এই বিজ্ঞাপন দেখে অনেকেই সাড়া দেন। যদিও তাঁরা কেউ এই আরশোলা মারার ব্যাপারে ভার্গবকে সাহায্য করেননি। সকলেই বলেন, এটা ভার্গব মজার জন্য করছেন।

কিন্তু ভার্গব বলেন, “সকলেই বলছেন এটা মজার। কিন্তু আমি সকলকে বলতে চাই এটা মোটেই মজার নয়। আমি ক্ষুধার্থ। ” পরে অবশ্য তিনি জানিয়েছেন, একটি চাদর মুড়ি দিয়ে তিনি খাবার বের করে আনতে সক্ষম হয়েছেন।