বারাকপুর : পরিস্থিতি এমনই। এবার নিমতায় করোনা আক্রান্তের দেহ পড়ে রয়েছে গতকাল রাত থেকে। উত্তর দমদম পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের আম্রকানন এলাকায় ৫৮ বছরের এক ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়। তারপর থেকে দেহ পড়ে রয়েছে।

পুরসভার তরফ থেকে জানানো হয়েছে কিছুক্ষণ আগে তারা খবর পেয়েছেন রাতে তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হবে। ১৮টি ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে দেহটি তার বাড়িতেই পড়ে রয়েছে এলাকার মানুষের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে কিছুক্ষণ আগে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে নিমতা থানার পুলিশ।

মৃতের মেয়ের অভিযোগ অক্সিজেনের অভাবে তার বাবার মৃত্যু হয়েছে। সময় মত অ্যাম্বুলেন্স ও আসেনি তাই করোনা পজিটিভ হওয়া সত্ত্বেও বাবাকে কোথাও ভর্তি করানো যায়নি।

এই মুহূর্ত করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের দাপটে নাজেহাল সারা দেশ। এরই মধ্যে আবার নতুন করে নজরে পড়ল করোনার তৃতীয় মিউট্যান্ট স্ট্রেনের। কোনও ভাইরাসের মিউট্যান্ট পরিবর্তিত হলে সেই ভাইরাস আরও দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে ।

দেশের চিকিৎসকদের কাছে এই মুহূর্তের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ এই নতুন মিউট্যান্টের করোনা ভাইরাসকে মোকাবিলা করা। এখন সব থেকে বিপদ সঙ্কেত হল এটাই, যে সমস্ত রাজ্যগুলিতে এই ট্রিপল মিউট্যান্টের হদিশ মিলেছে তার মধ্যে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গের নাম। বিজ্ঞানীদের বক্তব্য, একটি ভাইরাস যতবেশি মানুষকে সংক্রামিত করবে, তার মিউটেশন তত বাড়বে। এক্ষেত্রেও সেটিই হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.