স্টাফ রিপোর্টার, সিউড়ি: ফের ছাত্রভর্তি ঘিরে অশান্তি ছড়ালো হেতমপুর কৃষ্ণচন্দ্র কলেজে৷ কলেজের অধ্যক্ষ, অধ্যাপকদের তালাবন্ধ করে হেনস্তার অভিযোগ উঠল৷ ছাত্র প্রতিনিধিদের পক্ষ থেকে এদিন কলেজের সমস্ত অধ্যাপক এবং অধ্যক্ষকে একটি ঘরের মধ্যে রেখে তালা বন্ধ করে দেওয়া হয়৷ ছাত্রদের দাবি, এখনও যে সমস্ত ছাত্রছাত্রী ভর্তি হতে পারেনি তাদের অবিলম্বে পাস কোর্সে ভর্তি নিতে হবে৷

বেশ কিছু ছাত্র, ছাত্রী এখনও পাস কোর্সে ভর্তি হতে পারেনি৷ অথচ ভর্তির সময়ও পেরিয়ে গিয়েছে৷ তাই তাদের অবিলম্বে ভর্তি নিতে হবে এই দাবিতে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় বর্ষের ছাত্ররা কলেজের অধ্যক্ষ, অধ্যাপকদের তালাবন্দি করে দীর্ঘক্ষণ বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন৷

বিক্ষোভকারী ছাত্র শেখ আলাউদ্দিন বলেন, ‘‘আমাদের দুবরাজপুর ব্লকের এখনও বেশ কিছু ছাত্র-ছাত্রী কলেজে ভর্তি হতে পারেনি৷ আমাদের দাবি অবিলম্বে দুবরাজপুর শহরের ছেলে, মেয়েদের ভর্তি নিতে হবে৷ এই বিষয়ে আমরা বারবার স্যারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে গেলে উনি আমাদের কোন কথাই শুনতে চাননি৷ তাই আজ আমরা তাঁদের আটকাতে বাধ্য হয়েছি৷’’

কলেজের অধ্যক্ষ গৌতম চট্টোপাধ্যায় জানান, ‘‘এই মুহূর্তে কলেজের ছাত্র সংসদ নেই৷ তাই আমাদের কলেজের কয়েকজন ছাত্র প্রতিনিধি আমাদের ঘেরাও করে তালা বন্ধ করে রেখেছে৷ তাদের দাবি পাস কোর্সে কিছু ছাত্র ভর্তি হতে বাকি আছে, অবিলম্বে তাদের ভর্তি করতে হবে৷ এই মুহূর্তে কলেজে পাস কোর্সের সমস্ত সিট ভর্তি হয়ে গিয়েছে৷ তাই আমার কিছু করার নেই৷ তবে আমি ওদের বলেছি দাবি লিখিত আকারে দিতে৷ কলেজ কর্তৃপক্ষ তা বিচার বিবেচনা করবে এবং তাদের ভর্তির ব্যবস্থা করবে৷’’

তিনি জানান, ক্লাস শুরু না হওয়া পর্যন্ত এই সমস্ত সিটগুলিতে ভেরিফিকেশন করা সম্ভব নয়৷ বুধবার থেকে ক্লাস শুরু হবে৷ তখনই পরবর্তী পদক্ষেপ করা সম্ভব৷ কিন্তু ছাত্র প্রতিনিধিরা অধ্যক্ষের কোনও কথাই শুনছেন না৷ উল্টে তালাবন্দি করে রেখেছে৷ যদিও পুলিশ-প্রশাসনের আশ্বাসে প্রায় তিন ঘণ্টা পর ঘেরাও মুক্ত হন অধ্যক্ষ এবং অধ্যাপকরা৷