মুম্বই: ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেও তাঁর টেনিসপ্রেম এতটুকুও কমেনি৷ অস্ট্রেলিয়ান ওপেন ২০১৯-এর অন্তিমলগ্নে টেনিসের প্রতি তাঁর ভালোবাসার স্মৃতিচারণায় ডুব দিলেন ক্রিকেটঈশ্বর সচিন রমেশ তেন্ডুলকর৷

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন ছ’ বছর আগে৷ কিন্তু স্পোর্টস থেকে দূরে থাকা সম্ভব নয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে শততম সেঞ্চুরির মালিকের৷ টুইটারে নিজেই এ কথা জানালেন লিটল মাস্টার৷ টেনিস ব়্যাকেট হাতে ছোটবেলার ছবি টুইটারে পোস্ট করে সচিন লিখেছেন, ‘খেলাধূলো থেকে আমাকে আটকানো সম্ভব নয়৷ এমনকি আমার পায়ে যখন জুতো থাকে না তখনও!’ এই টুইট অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের অফিসিয়ালস টুইটার হ্যান্ডেলেও তা পোস্ট করেছেন ক্রিকেটঈশ্বর৷ তাঁর এই পোস্ট লাইক করেছেন ফ্যানেরা৷

সচিনের টেনিসপ্রেম নতুন নয়৷ ছোটবেলা থেকেই জন ম্যাকেনরোর ভক্ত ছিলেন কিংবদন্তি এই ক্রিকেটার৷ ক্রিকেট কেরিয়ারের মধ্যগগনেও উইম্বলডনে সুইস মায়েস্ত্র রজার ফেডেরার ম্যাচ দেখেছেন তিনি৷ সাক্ষাৎ হয়েছে খেলার জগতের দুই কিংবদন্তির৷ ফেডেরারের নবম উইম্বলডন খেতাব জয়ের সময়ও দেখা হয় দু’জনের৷

তবে মরশুমের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম অস্ট্রেলিয়ান ওপেন থেকে ইতিমধ্যেই বিদায় নিয়েছেন রজার৷ প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে সাতবারের অস্ট্রেলিয়ান ওপেন জয়ী ফেডেরার হারেন গ্রিকের তরুণ খেলোয়াড় স্তোফানোস সিতসিপাসের কাছে৷ রড লেভার এরিনায় শেষ ষোলোর লড়াইয়ে ৩৭ বছরের সুইস তারাকে চার সেটের লড়াইয়ে হারান বছর কুড়ির সিতসিপাস৷

ম্যাকেনরোর ভক্ত হলও সচিনের ধ্যানজ্ঞ্যান ছিল ক্রিকেট৷ ২৪ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলারদের শাসন করে লিখেছেন একাধিক ইতিহাস৷ বিশ্বের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ২০০ টেস্ট খেলার পাশাপাশি টেস্ট ও ওয়ান ডে ক্রিকেটে সর্বাধিক সেঞ্চুরি এবং সর্বাধিক রানের মালিক সচিন৷ টেস্টে ৫১টি এবং ওয়ান ডে-তে ৪৯টি অর্থাৎ মোট ১০০টি আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরি রয়েছে সচিনের৷