নয়াদিল্লি: সচিন-সৌরভ যুগলবন্দিতে জয় ভারতের। দেশের সর্বকালের সেরা ওপেনিং জুটিকে নিয়ে সংবাদমাধ্যমের এমন শিরোনাম যে কতবার লেখা হয়েছে, তার কোনও ইয়ত্তা নেই। আক্ষরিক অর্থে সচিন তেন্ডুলকর ও সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় যেন ভারতীয় ক্রিকেটের জুটিতে লুটি। একসময় নন-স্ট্রাইক এন্ডে দাঁড়িয়ে বেহালার ছেলেটার ‘বাপি বাড়ি যা’ যেমন তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করতেন তেন্ডুলকর, ঠিক তেমনই বান্দ্রার বাদশার চোখ ধাঁধানো পুল বাউন্ডারিতে আছড়ে পড়তে দেখে নন-স্ট্রাইক থেকে ছুটে যেতেন সৌরভ।

শুধু নন-স্ট্রাইকার এন্ডে দাঁড়িয়ে একে অপরের ব্যাটিং ক্যারিশমা চাক্ষুষ করাই নয়, সতীর্থ হিসেবে দু’জনের কেরিয়ারের সমস্ত ঘাত-প্রতিঘাত যেন দু’জনের চেয়ে ভালো কেউ জানেন না। লর্ডসে অভিষেক টেস্টে শতরান, অধিনায়ক হিসেবে দলের দায়িত্বভার গ্রহণ, মহারাজের অধিনায়কত্বে বিশ্বকাপ ফাইনাল, প্রিয় সতীর্থের সঙ্গে গুরু গ্রেগের মতানৈক্য, সৌরভের দল থেকে বাদ পড়া, মহাকাব্যিক কামব্যাক কিংবা সবশেষে বাইশ গজে প্রস্থান। কেরিয়ারে প্রিয় দাদি’র প্রত্যেকটা ঘাত-প্রতিঘাতের বিশ্বস্ত সঙ্গী হিসেবে আষ্ঠেপৃষ্ঠে জড়িয়েছিলেন তেন্ডুলকর।

খেলা ছাড়ার পর ক্রিকেট অ্যাডভাইসরি কমিটিতে থেকেই হোক কিংবা আইপিএলের মেন্টর হিসেবে কোনও না কোনভাবে ভারতীয় ক্রিকেটের সেবা করে এসেছেন দুই দিকপালই। তাই দেশের ক্রিকেটের মসনদে তাঁর প্রিয় সতীর্থকে দেখে যে মাস্টার ব্লাস্টার যারপরনাই খুশি হবেন, সে আর বলার অপেক্ষা রাখে না। বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর থেকে হাজারো শুভেচ্ছার বন্যায় ভাসছেন মহারাজ। আর মঙ্গলের সন্ধ্যায় নয়া বোর্ড প্রেসিডেন্ট নিজের শহরে ফিরে যখন প্রথম সাংবাদিক সম্মেলনে নানা বিষয় নিয়ে কথা বলতে ব্যস্ত, ঠিক তখনই সৌরভকে অভিনন্দন একইসঙ্গে শুভেচ্ছা জানিয়ে টুইট করলেন বান্দ্রার বাদশা।

মাইক্রোব্লগিং সাইটে ভারতীয় ক্রিকেটের মহীরুহ লিখলেন, ‘প্রিয় দাদি বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হওয়ার জন্য অনেক অভিনন্দন। আমি নিশ্চিত ভারতীয় ক্রিকেটকে তুমি আগের মতই সেবা করবে। বোর্ডের দায়িত্বগ্রহণ করতে চলা নয়া টিমকে আমার শুভেচ্ছা।’ সঙ্গে প্রাক্তন সতীর্থের একটি ছবিও টুইটারে পোস্ট করেন সচিন।

উল্লেখ্য, আগামী ২৩ অক্টোবর বোর্ডের বার্ষিক সাধারণ সভায় নয়া প্রেসিডেন্ট হিসেবে কার্যভার গ্রহণ করবেন প্রাক্তন সিএবি প্রেসিডেন্ট। মহারাজের সঙ্গে নয়া সচিব হিসেবে দায়িত্ব নেবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের পুত্র জয় শাহ। একইসঙ্গে সহ-সভাপতি ও সহ-সচিব পদে দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন যথাক্রমে মহিম বর্মা ও জয়েশ জর্জ। নয়া কোষাধ্যক্ষ বোর্ডের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট অনুরাগ ঠাকুর ঘনিষ্ঠ অরুণ সিং ধুমাল।