দিঘা: শ্রাবণ মাস প্রায় শেষ হতে চলল কিন্তু ইলিশের এখনও তেমন জোগান দেখা যাচ্ছে ৷ তবে মঙ্গলবার দিঘার মোহনার মাছের নিলাম কেন্দ্রে ১০ টন ইলিশ উঠেছে।ইলিশ। লঞ্চ–ট্রলার থেকে নামিয়ে এই টাটকা ইলিশ এদিন পাওয়া গেল রাজ্যের বড় এই মাছের আড়তে। ফলে চলে দাম নিয়ে দরাদরি৷ পাইকারী মাছ বিক্রতাদের পাশাপাশি খুচরা বিক্রেতাদেরও ওই ইলিশ কিনতে দেখা যায়৷

ইতিমধ্যে ভরা মরশুমেও ইলিশের দাম মধ্যবিত্তের ধরাছোঁয়ার বাইরে। এখনও পর্যন্ত পর্যাপ্ত মাছ না থাকায় কমেনি ইলিশের দাম। ফলে বর্ষার মরশুমেও বাঙালির পাতে ইলিশ নেই। আর বিক্রেতাদের বক্তব্য, চাহিদার সঙ্গে ভারসাম্য রেখে জোগান না থাকায় ইলিশের এত চড়া দাম। তবে দিঘায় ১০ টন ইলিশ ওঠার পর সেখানে বাজারে ৪০০–৫০০ গ্রামের ইলিশের দাম ছিল ৬০০–৭০০ টাকা। আর একটু বড় ইলিশ হলে দাম পড়ছিল ১০০০–১২০০ টাকা। এর নেতিবাচক প্রভাব ছে খুচরো বাজারগুলিতেও দেখা যাচ্ছে৷

ধরা হয়ে থাকে ‌আষাঢ়, শ্রাবণ, ভাদ্র ও আশ্বিন এই চার মাস হল ইলিশের মরশুম৷ শ্রাবণের শেষবেলাতেও তেমন ভাবে ইলিশ কই? যা মিলছে তার দামও তো দেখা যাচ্ছে আকাশছোঁয়া।‌ মৎস্যজীবী ৯ আগস্ট থেকে নতুন করে লঞ্চ–ট্রলার ভাসিয়েছিলেন কিন্তু দুর্যোগের পূর্বাভাস মেলায় সোমবার রাতের মধ্যে ফিরে আসেন তারা৷ তবে আর তাঁদেরই জালে ১০ টন ইলিশ উঠেছে।