জালালাবাদ: ফের বড়সড় হানা জালালাবাদে৷ শিক্ষা দফতরে ঢুকে গুলি বন্দুকবাজের, ঘটনায় ১০ জন নিহত৷ ৪ ঘণ্টা গুলি যুদ্ধের পর সুরক্ষিত দফতরের বাকি কর্মীরা৷ বন্দুকবাজের পরিচয় এখনও জানা যায়নি৷

আফগান সংবাদ সূত্রের খবর, শিক্ষা দফতরের একটি ঘরে ন্যাটো বাহিনীর বৈঠক চলছিল৷ ন্যাটো বাহিনীকে টার্গেট করেই গুলি চালায় বন্দুকবাজ৷ গুলি চলার কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘটনাস্থলে পৌঁছয় আফগান সেনা৷

আরও পড়ুন: মাওবাদীদের সঙ্গে লড়াইয়ে শহিদ বেলডাঙার নির্মল

৪ ঘণ্ট গুলিয়ুদ্ধের পর দফতরকে সন্ত্রাসমুক্ত করে সেনা৷ জালালাবাদে এই নিয়ে পর পর তিন বার হামলা জালালাবাদে৷ ১জুলাই শিখদের টার্গেট করে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ,এরপর আরও একটি আত্মঘাতী হামলায় ১০ জনের মৃত্যু৷ বুধবার টার্গেট সেই জালালাবাদ৷ ভোটের আগে যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানিস্তান প্রতিদিনই রক্তাক্ত হচ্ছে৷

জালালাবাদের নানগারহার প্রদেশে হামলা চলে৷ আফগানিস্তানে ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি এয়ার স্ট্রাইট করে ন্যাটো৷ দাবি, তালিবান ও আইসিস ঘাঁটি ভাঙতে সফল ন্যাটো৷ সন্ত্রাস বিরোধী অভিযান চললেও নীরিহদের মৃত্যু ঠেকানো অসম্ভব হয়ে উঠছে৷ বুধবার শিক্ষা দফতরের বাইরে নিরাপত্তারক্ষী থাকলেও সেখানে অবলিলয়া ঢুকে এলোপাথাড়ি গুলি চালায় বন্দুকবাজ৷ আগের দুই হামলার দায় আইসিস স্বীকার করলেও, বুধবারের হামলার দায় এখনও কোনও জঙ্গি সংগঠন স্বীকার করেনি৷

আরও পড়ুন: অতীতে ডুবে আবির

জালালাবাদের নানগারহার প্রদেশ পাকিস্তান সীমান্তের কাছে৷ এই এলাকা ইসলামিক স্টেটের শক্ত ঘাঁটি৷ ২০১৫ সাল থেকে এলাকায় তালিবানদের প্রভাব কমেছে৷ ন্যাটো বাহিনী আসার পরই বিশেষ নিকাপত্তায় ঘেরা আফগানিস্তানের কাবুল,জালালাবাদ সহ প্রধান শহরগুলি৷ তাতেও নিরাপত্তার আড়ালেই সন্ত্রাসের থাবা জারি আফগানিস্তানে৷ বুধবার শিক্ষা দফতরের বাইরে দুটি বিস্ফোরণ হয়, মৃত ১০ জনের মধ্যে ১ দফতরের নিরাপত্তা রক্ষী৷

আরও পড়ুন: দু’বছরের শিশু মুখস্ত বলে যাচ্ছে সব কটি রাজ্যের নাম!