স্টাফ রিপোর্টার,কলকাতা: খাতায় কলমে শীত আসতে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে৷ কিন্তু বুলবুলের জেরে রাজ্যে এখনই শীতের আমেজ পাওয়া যাচ্ছে৷ বিশেষ করে ভোর রাতে৷

আবহাওয়া দফতর সূ্ত্রে খবর, আগামী কয়েক দিনে রাতের তাপমাত্রা নেমে যেতে পারে ২০ ডিগ্রির নিচে৷ ফলে শীতের আমেজ পাবে বাংলার মানুষ৷ যদিও পাকাপাকিভাবে শীতের জন্য আরও কিছু দিন অপেক্ষা করতে হবে৷ এখন ভোর রাতে যে শীতের আমেজ পাওয়া যাচ্ছে,তা বুলবুলের জন্য৷ ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের জন্য কলকাতাসহ রাজ্যের তাপমাত্রা কিছুটা কমে গিয়েছে৷

বুলবুল বিদায় নেওয়ার পর আজ মঙ্গলবার সকাল থেকেই রোদ ঝলমলে আকাশ৷ হাওয়া অফিস বলছে, আজ আকাশ আংশিক মেঘলা হতে পারে৷ সর্বাধিক তাপমাত্রা ৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে৷ যা স্বাভাবিকের থেকে ১ ডিগ্রি কম৷ এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২২ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড থাকবে৷ গত ২৪ ঘণ্টায় কোনও বৃষ্টিপাত হয়নি৷

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব কাটতে না কাটতেই দেখা মিলল আর একটি ঘূর্নাবর্তের। যার পোশাকি নাম রাখা হয়েছে ‘নাকরি’৷ বুলবুল যে ঘূর্নাবর্ত থেকে সৃষ্টি হয়েছিল তার নাম ছিল মাতমো। এই মাতমোর উৎসস্থল ছিল দক্ষিণ চিন সাগর। মাতমো থেকেই ছিটকে গিয়ে তৈরি হয়েছিল বুলবুল। এবার আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছে, ওই একই ধরনের আরও একটি ঘূর্নাবর্ত তৈরি হচ্ছে দক্ষিণ চিন সাগরেই। যার পোশাকি নাম নাকরি।

আপাতত যথেষ্ট শক্তিশালী রয়েছে এই ঘূর্নাবর্ত এবং তা ধীরে ধীরে এগোচ্ছে ভিয়েতনয়ামের ভূমি লক্ষ্য করে। ভিয়েতনামের উপকূলে ব্যাপক ব্রিস্টিপাত ঘটানোর পর কিছুটা শক্তিক্ষয় হবে এই নিম্নচাপটির। এরপর দক্ষিণ থাইল্যান্ড অতিক্রম করে মায়ানমারের দক্ষিণ ভাবে এসে পৌঁছবে এই ঘূর্নাবর্ত। মায়ানমার অব্ধি এসে পৌঁছালেও এই ঘূর্নাবর্তের লণ্ডভণ্ড করার শক্তি তেমন থাকবে নয়া। খুব বেশি হলে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

মায়ানমারের পর ফের একবার বঙ্গোপসাগরের ওপরে আসবে এই ঘূর্ণিঝড়। আবহাওয়াবিদদের আশঙ্কা এখানেই। বঙ্গোপসাগর থেকে ফের একবার শক্তি সঞ্চয় করতে পারে এই ঘূর্নাবর্ত। আর তা যদি হয়, তবে ফের বিপদ ঘনাবে ভারতের দক্ষিণভাগে। ‘নাকরি’র মুখোমুখি হতে পারে অন্ধ্রপ্রদেশ ও ওড়িশাকে। কিন্তু এই ঝড় কবে নাগাদ ভারতে এসে পৌঁছাবে সে সম্পর্কে কোনও সঠিক তথ্য এই মুহূর্তে জানা যায়নি।