স্টাফ রিপোর্টার , কলকাতা : প্রেমের দিনে উষ্ণতা বাড়ছে। উষ্ণতা বাড়াচ্ছে আবহাওয়া। হাওয়া অফিস জানাচ্ছে বসন্ত এবার সত্যিই দুয়ারে। সেই মতই কমছে শীতের উত্তুরে হাওয়ার দাপট। ভালোবাসার দিনে যা পারদকে আরও একটু চরাল।

ফলে আজকের দিনে যে সব যুগল রাস্তায় ঘুরতে বেরবেন তাঁদের বেলার দিকে গায়ে গরম জামা না রাখলেও চলবে। সোজা কথায় খোলস ছাড়ার দিন শুরু। আর তা শুরু হল ভালোবাসার দিন থেকেই। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস মতোই ধীরে ধীরে বাড়ছে শহরের তাপমাত্রা। এবার তাপমাত্রা উপরের দিকেই ক্রমে যাবে। এমনটাই জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। সকালের পারদেই তা স্পষ্ট।

শুক্রবার সকালে শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বৃহস্পতিবারের তুলনায় আরও এক ডিগ্রি বাড়ল। আজ শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৫.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যদিও তা এখনও স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি কম। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা গতকালই স্বাভাবিকে পৌঁছে গিয়েছে। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৮.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিক।

বৃহস্পতিবার সকালে শহরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৪.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে তিন ডিগ্রি কম। বুধবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৬.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস যা স্বাভাবিকের থেকে দুই ডিগ্রি কম। শুক্রবার বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ কম। সর্বনিম্ন ২৪ শতাংশ সর্বোচ্চ ৯৬ শতাংশ। ফলে তাপমাত্রা বাড়লেও আর্দ্রতার সর্বোচ্চ সর্বনিম্নে ফারাক থাকায় গরমের বিশ্রী অনুভূতি এখনই হবে না। হালকা শীত অনুভূত হবে সকালে। বেলার দিকে বসন্তের আবহাওয়া স্পষ্ট হবে।

প্রসঙ্গত বুধবার পর্যন্ত দক্ষিন ও উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় জাঁকিয়ে শীত অনুভূত হয়েছে। ওইদিনের পারদ কতটা নীচে ছিল তা স্পষ্ট হবে হাওয়া অফিসের তাপমাত্রার অঙ্ক দেখলেই। ১২ ফেব্রুয়ারি আসানসোলের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বালুরঘাটের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ঘোরাফেরা করেছে ১২ ডিগ্রির আশেপাশেই। ব্যরাকপুরের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১০.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, কোচবিহারের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বর্ধমানের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১১.০, ক্যানিংয়ের ১১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মালদার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৩.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। জলপাইগুড়ির সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস, পানাগড় ও শ্রীনিকেতনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০.৩ ও ১০.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।