ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: টেলিকম সেক্টরের কর্মীদের জন্য খারাপ খবর৷ আগামী বছরেই কাজ হারাতে পারেন প্রায় ৬০,০০০ বেশি কর্মী৷ এমনই জানাচ্ছে সংবাদ মাধ্যমের তথ্য৷ যেটি ইতিমধ্যেই বর্তমানের কর্মীদের ফেলেছে চ্যালেঞ্জের মুখে৷ প্রযুক্তিগত অগ্রগতির কারণেই সিদ্ধান্তটি নিতে বাধ্য হয়েছে টেলিকম সংস্থাগুলি৷ যুগের সঙ্গে তাল মেলানোর জন্য প্রয়োজন প্রযুক্তিতে দক্ষ হাত৷ আর, ইন্ডাস্টিতে সেরকম কর্মীদের যথেষ্ট অভাব রয়েছে বলে মনে করছে টেলিকম সংস্থাগুলি৷

তথ্য জানাচ্ছে, ৩১ মার্চ, ২০১৯ এর মধ্যেই চাকরি খোয়াতে পারেন কমপক্ষে ৬৫,০০০ কর্মী৷ কাস্টমার সার্পোট এক্সিকিউটিভ ও ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ওয়ার্কাররা সবথেকে বেশি প্রভাবিত হতে চলেছেন এই সিদ্ধান্তে৷ যেটি অবশ্যই চাপে ফেলতে পারে কর্মীদেরকে৷ অন্যদিকে, নয়া প্রতিভাকে নিয়োগের পরিকল্পনা করছে ইন্ডাস্ট্রি৷ যারা নিত্যনতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে নতুন প্রযুক্তিতে হবে একেবারে দক্ষ৷

সংবাদ মাধ্যমের তথ্য জানাচ্ছে, ২০২০ তেও জারি থাকবে এই ছাঁটাইপর্ব৷ রিলায়েন্স জিও বিপ্লব এনেছে টেলিকম মার্কেটে৷ সময়ের সঙ্গে বাড়িয়েছে প্রতিযোগিতা৷ যেখানে নিজেদের অস্তিত্ব বাঁচাতে ছোট ছোট টেলিকম সংস্থাগুলি যুক্ত হয়েছে বড়বড় সংস্থাগুলির সঙ্গে৷ উদারহণ হিসেবে বলা যায়, ভোডাফো আইডিয়ার কথা৷ টেলিকম ইন্ডাস্টি আসার ফলে কর্মসংস্থান হয়েছিল ২৫ লক্ষেরও বেশির৷ কিন্তু, ইন্ডাস্ট্রির খারাপ ফলাফলের কারণেই গত বছরে ছাঁটাই করা হয়েছে প্রায় এক লক্ষ কর্মীকে৷ এই মুহুর্তে প্রতিযোগিতায় রয়েছে রিলায়েন্স জিও, ভোডাফোন আইডিয়া এবং ভারতীয় এয়ালটেল৷