পাটনা: দুই ভাইয়ের বিরোধে দলে আগেই ভাঙন হয়েছিল৷ দল থেকে ইস্তফা দিয়েছিলেন লালুপ্রসাদ যাদবের বড় ছেলে তেজপ্রতাপ৷ এবার নিজের মোর্চা গঠন করলেন তিনি৷ আসন্ন লোকসভা ভোটে আরজেডি’র বিরুদ্ধে প্রার্থীও দেবে এই মোর্চা৷ সোমবার সাফ জানিয়ে দিলেন তেজপ্রতাপ৷

লালুর বড় ছেলে নিজের মোর্চার নাম রেখেছেন বাবা, মায়ের নাম দিয়েই৷ নতুন মোর্চার নাম লালু-রাবড়ি মোর্চা৷ তেজপ্রতাপ যাদব জানান, আসন্ন ভোটে রাজ্যের ২০টি লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী দেবে নবগঠিত এই মোর্চা৷ গত শুক্রবারই ট্যুইট করে আরজেডির সব পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন বলে জানান তেজপ্রতাপ৷

 

বেশ কিছুদিন ধরেই পরিবার ও দলের ওপর অসন্তুষ্ট ছিলেন তেজপ্রতাপ। মূলত ভাইয়ের সঙ্গে ইগোর লড়াই চলছিল তাঁর৷। ভাই তেজস্বী যাদব বর্তমানে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা। লালুপ্রসাদ যাদব তাকেই রাজনৈতিক উত্তরাধিকারী বলে বেছে নিয়েছেন৷ তাঁর হাতেই দলের কর্তৃত্ব৷ মেনে নিতে পারেননি বড় ছেলে তেজপ্রতাপ৷

অন্য একটি সূত্রের খবর, বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা চলছে তেজপ্রতাপের৷ কিন্তু শ্বশুর চন্দ্রিকা রাইকে ছাপড়া আসন থেকে টিকিট দিয়েছে আরজেডি৷ যা বিবাদের মূল কারণ৷ দলীয় সূত্রে খবর, লালুপ্রাসদ যাদব এবং পুত্র তেজস্বী আটবারের বিধায়র যাদব চন্দ্রিকা রাইকেই প্রার্থী হিসাবে চেয়েছেন। এই সিদ্ধান্তেরই ঘোরতর বিরোধীতা করছিলেন তেজপ্রতাপ৷ যা অবশ্য ধোপে টেকেনি৷ দলের মধ্যেও তেজপ্রতাপ ও তেজস্বীপ্রতাপের অনুগামীদের মধ্যে বিরোধ শুরু হয়৷

যদিও দলের মধ্যেই তেজপ্রতাপের সমালোচকরা তাঁকে মনোযোগ আকর্ষণকারী বলে অভিযোগ জানিয়েছেন৷ ২০১৫ সালে যখন বিহারে নীতীশ কুমারের নেতৃত্বাধীন জনতা দল ইউনাইটেড-আরজেডির জোট সরকার ক্ষমতায় আসে৷ সেই সময় তেজস্বীকে উপমুখ্যমন্ত্রী করা হয়েছিল। তেজপ্রতাপকে করা হয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী। সেই থেকেই মন কষাকষির শুরু৷

রাজনৈতির বিশ্লেষকদের মতে, আরজেডি’তে ক্রমশ কোণঠাসা হয়ে পড়ছিলেন তেজপ্রতাপ৷ উলটো দিকে ক্ষমতা বাড়ছিল ভাই তেজস্বীর৷ তাই দল ও পরিবারের অভ্যন্তরে রাজনীতিতে চাপ তৈরি করতেই লালুপ্রসাদের বড় ছেলের এই মোর্চা গঠন৷