পাটনা: গত কয়েক দিন ধরে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ায় কিশোরী নিগ্রহের একটি ভিডিও ঘুরছিল। যেখানে গিয়েছে যে কিশোরীকে বলপূর্বক নির্যাতন করে চলেছে একদল যুবক। শুধু তাই নয়, মেয়েটির পোশাক খুলে ফেলেছে হামলাকারীরা।

কাঠুয়া-উন্নাও ঘটনার রেশ বজায় থাকায় খুব অল্প সময়েই তা ভাইরাল হয়ে যায়। ভিডিও-টিতে দেখতে পাওয়া সকলের কথা শুনে মনে করা হচ্ছিল জায়গাটি বিহারের। এবং সেখানের কোনও গ্রামের ফাঁকা রাস্তায় কিশোরীটিকে একা পেয়ে তার উপরে চড়াও হয়েছে একদল যুবক।

সেই ঘটনায় জড়িত ছয় জনকে রবিবার গ্রেফতার করা হয়েছে। এমনই জানিয়েছে বিহার পুলিশ। সকলকেই বিহারের জেহানাবাদ এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। যদিও ওই ঘটনায় জড়িত দুই জনের সন্ধান মেলেনি। একইসঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভিডিও-টি যে পোস্ট করেছিল তাকেও আটক করা হয়েছে।

ওই ভিডিও-তে দেখা গিয়েছিল যে একদল হামলাকারীর সামনে অত্যন্ত অসহায় হয়েও হাল ছাড়েনি মেয়েটি। সকলের সঙ্গে লড়াই চালিয়ে গিয়েছে। আত্মরক্ষার্থে একজনকে লাথি মারার চেষ্টা করলে সে আবার মেয়েটির পা চেপে ধরে। এতকিছুর পরেও কেউ মেয়েটিকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেনি। আরও বড় বিষয় হচ্ছে যে সমগ্র ঘটনা ক্যামেরাবন্দি করে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিল সেই কোনও প্রতিবাদ করেনি।

ভিডিও-টি প্রকাশ্যে আসতেই অভিযুক্তদের জাল পুরতে আসরে নামে পুলিশ। বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করে ফেলেন প্রবীণ আইপিএস অফিসার নাইয়ার হোসেন খান। পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে অভিযুক্তদের অধিকাংশই কিশোর। ঘটনাস্থলে হামলাকারীদের একটি মোটরবাইক ছিল। যেটি মামলার প্রমাণ হিসেবে খুব গুরুত্বপূর্ণ নথি। যে মোবাইলে উক্ত ভিডিও রেকর্ড করা হয়েছে সেই মোবাইলটি বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ।

অধরা দুই অভিযুক্তের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। গ্রামের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে চলছে জিজ্ঞাসাবাদ। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।