ইসলামাবাদ : ধর্মান্তরিত হতে অস্বীকার করায় পাকিস্তানে সংখ্যালঘু তরুণীকে গণধর্ষণের শিকার হল দাদার সামনেই। খ্রিস্টান পরিবারের অভিযোগ অনুযায়ী, তাঁদের পরিবারকে মুসলিম ধর্মগ্রহণের জন্য জোর করা হয়। ধর্মান্তকরনে নারাজ হওয়ায়তেই তিনজন মুসলিম মিলে তাঁদের মেয়েকে গণধর্ষণ করে। এই জঘন্য কুকর্ম ঘটানোর সময় তরুণীর দাদাকে বাধ্য করা হয় বোনের চিৎ‌কার শুনতে। ঘটনাটি ঘটেছে পাকিস্তানের কাসুরে।

ডেইলি মেলের রিপোর্ট অনুযায়ী, খ্রিস্টান এই ভাই-বোনকে ধর্মান্তরিত হওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে এই মুসলিম দলটি। তাঁরা তাঁদের নেতবাচক উত্তর থেকে অটল থাকাতেই ঘটে এই বিশ্রী ঘটনা। ওই তিন যুবক ভাই-বোনকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। এরপর নিজেদের ডেরায় নিয়ে গিয়ে তরুণীকে তিনজনে মিলে গণধর্ষণ করে।

ব্রিটিশ পাকিস্তানি ক্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশন পুলিশকে জানিয়েছে, ওই ধর্ষকরা লাঠি-রড ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে চড়াও হয়েছিল। তরুণীর দাদা জানিয়েছে, তাঁকে যে ঘরে আটকে রাখা হয়েছিল, তার পাশের বোনকে রেখে যৌননির্যাতন চালায় দুষ্কৃতীরা। বোনের সেই চিৎ‌কার শুনতে তাঁকে বাধ্য করা হয়। অপহরণকারীদের ডেরা থেকে নিগৃহীতার দাদা বেরিয়ে আসার পরেই ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আসে। তবে, এখনও পর্যন্ত ওই তরুণীর সন্ধান পাওয়া যায়নি।
খ্রিস্টানদের চ্যারিটির অভিযোগ, স্থানীয় পুলিশ গণধর্ষণের অভিযোগ নিতে অস্বীকার করে।