প্রতীকী ছবি

লখনউ: এবার ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে উত্তাল উত্তরপ্রদেশের মেডিক্যাল কলেজ৷ গোরক্ষপুরের বাবা রাঘবদাস মেডিক্যাল কলেজ ফের খবরের শিরোনামে। এই হাসপাতালে এবার এক নাবালিকাকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠল। ১৫ বছরের ওই মেয়েটি জানিয়েছে, তার বাড়ি বলরামপুরে।

সে আরও জানিয়েছে বাড়িতে আর্থিক অনটন৷ সেই অভাব মেটাতে চাকরির চেষ্টা করতেই তার বাড়ির বাইরে আসা৷ ট্রেন ধরে সে প্রথমে লখনউয়ে আসে। স্টেশনে সোনালী নামে এক তরুণীর সঙ্গে তার আলাপ হয়।
সোনালী নিজেকে নার্স বলে পরিচয় দিয়ে তাকে চাকরি দেবে বলে হাসপাতালে নিয়ে যায়৷ সেখানে ফোনে চার্জ দেওয়ার নাম করে ছাদে নিয়ে তাকে আফরোজের হাতে তুলে দেয় সোনালী। মেয়েটির চিৎকার শুনে লোকজন ছুটে আসায় পালিয়ে যায় আফরোজ।

নাবালিকা জানিয়েছে আফরোজের সঙ্গে আরও বেশ কয়েকজন ছিল৷ তারা প্রত্যেকেই পালিয়ে যায়৷ পুলিশ জানিয়েছে, এই ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। রাতের অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে সবাই পালিয়ে যায় বলে মনে করা হচ্ছে৷ এখনও কারুরই খোঁজ পাওয়া যায়নি। সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অভিযুক্ত যুবক গোরক্ষপুরের বাসিন্দা না অন্য জায়গা থেকে এখানে এসেছিল, সে বিষয়েও তদন্ত করা হচ্ছে।

পড়ুন: পণ প্রথাকে শিক্ষা দিতে বিয়েতে নজির গড়লেন এই শিক্ষক

এই বাবা রাঘবদাস মেডিক্যাল কলেজেই ৪৮ ঘন্টায় ৩০টি শিশুর মৃত্যু হয়৷ অক্সিজেনের সরবরাহ আচমকা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শিশু মৃত্যুতে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। গুরুতর অসুস্থ ওই ৩০টি শিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করানোর পর রাখা হয়েছিল অক্সিজেন সাপোর্টে।

হাসপাতাল সূত্রের খবর, যে সংস্থাটি অক্সিজেন সরবরাহ করে, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ঠিক সময়ে তাদের বিলের প্রাপ্য টাকা মেটাননি। ফলে, হাসপাতালে সংস্থাটি অক্সিজেন সরবরাহ করতে দেরি করছিল। আর তারই পরিণতিতে মৃত্যু হয় পুরোপুরি অক্সিজেন সাপোর্টে থাকা ৩০টি শিশুর।