বালুরঘাটঃ রেলের তরফে জারি করা তেভাগা এক্সপ্রেস বাতিলের পরিকল্পনার চিঠি ঘিরে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে বালুরঘাটে। সম্প্রতি বালুরঘাট -কলকাতা সকালের তেভাগা এক্সপ্রেস বাতিল করে সেটিকে রাতে চালানোর পরিকল্পনা নিয়েছে রেল। এবিষয়ে রাতের সময় তালিকা প্রকাশ করে বালুরঘাট স্টেশন মাস্টারকে পরিকাঠামো খতিয়ে দেখার জন্য চিঠিও পাঠিয়েছে রেল। তা নিয়েই বালুরঘাটের মানুষের মধ্যে শুরু হয়েছে প্রতিবাদের ঝড়।

ইতিমধ্যেই এলাকার বিধায়ক তথা প্রাক্তন মন্ত্রী বিশ্বনাথ চৌধুরী রেলের এই পরিকল্পনার বিরোধিতা করে তেভাগা এক্সপ্রেসকে সকালের সময় তালিকা মেনেই চালানোর দাবি তুলেছেন। অন্যদিকে বালুরঘাটের সাংসদ বিজেপির সুকান্ত মজুমদার জানিয়েছেন বালুরঘাট-হাওড়া এক্সপ্রেস দ্বি-সাপ্তাহিক ট্রেনটি দৈনিক চালুর জন্য তিনি বহুদিন থেকেই দাবি জানিয়ে আসছিলেন। আসলে সেটিকে দৈনিক করার পরিকল্পনা নিতে গিয়ে ভুল করে তেভাগার কথা উল্লেখ করে ফেলেছে রেল। বিষয়টি নিয়ে রেলের সাথে তার কথাও হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিজেপি সাংসদ।

বিধায়ক তথা আরএসপি”র রাজ্য সম্পাদক বিশ্বনাথ চৌধুরী জানিয়েছেন তেভাগা নামটার সঙ্গে জেলার মানুষের আবেগ জড়িয়ে আছে। সেই আবেগকে সম্মান জানিয়েই সকালে কলকাতা যাওয়ার ট্রেনটির নাম তেভাগা এক্সপ্রেস রাখা হয়েছিল। শুধু বালুরঘাট তথা দক্ষিণ দিনাজপুরেরই নই। মালদহ বীরভূম এমনকি কলকাতার দিকের মানুষেরও কাছে অত্যন্ত সুবিধাজনক এই ট্রেনটি। এমতাবস্থায় সেটিকে বাতিল করার বিষয়টিকে কোন ভাবেই সমর্থন করা যাবে না। অবিলম্বে এই পরিকল্পনা থেকে রেল সরে না আসলে জেলা জুড়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামা হবে বলেও তিনি জানিয়েছেন।

এদিকে প্রাক্তন সাংসদ তথা তৃণমূলের জেলা সভাপতি অর্পিতা ঘোষ জানিয়েছেন বালুরঘাটের মানুষের কথা ভেবে মমতা বন্দোপাধ্যায় রেলমন্ত্রী থাকাকালীন তেভাগা সহ একগুচ্ছ ট্রেন চালু করেছিলেন। কলকাতা ও দক্ষিণবঙ্গে যাতায়াতের ক্ষেত্রে সেগুলি খুবই কার্যকরী হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে হঠাৎই তেভাগার মত গুরুত্বপূর্ণ ট্রেনটিকে বাতিল করার ভাবনা চিন্তাকে মেনে নেওয়া হবে না। বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সাথে শীঘ্রই কথা বলবেন বলে জানিয়েছেন অর্পিতা।

যদিও বালুরঘাটের সাংসদ বিজেপির সুকান্ত মজুমদার জানিয়েছেন যে দ্বি-সাপ্তাহিক বালুরঘাট-হাওড়া এক্সপ্রেস ট্রেনকে দৈনিক করার জন্য তিনি রেলের সাথে এর আগে কথা বলেছিলেন। সেই অনুসারে ট্রেনটিকে দৈনিক চালুর জন্য রেলের তরফে একটি সময় তালিকা তৈরি করে সংশ্লিষ্ট বিভাগে পাঠানো হয়েছে। সেখানে ভুল করে তেভাগার নাম লেখা হয়ে গেছে বলে রেলের আধিকারিকরা তাঁকে জানিয়েছেন।