সুভাষ বৈদ্য, কলকাতা : মেয়র পদে তিনি তখন অতীত। জানেন না তাঁর সরকারি গাড়ির চালক। সাহেব এগিয়ে আসছেন দেখেই চালকের ব্যস্ততা সপ্তমে। কিন্তু, সদ্য প্রাক্তন মেয়র সরকারি গাড়ির দিকে গেলেন না। এমন তো আগে কখনো হয়নি।সরকারি গাড়ির চালক ছুটে গেলেন স্যারের কাছে। সব্যসাচী দত্তের মুখ থেকেই শুনলেন সব। তারপর নিজেকে আর সামলাতে পারেননি ওই সরকারি কর্মী। কান্নায় ভেঙে পড়েন সে। কঠিন রাজনীতির নাগপাশ এড়িয়ে বিধাননগর পৌরভবনের একতলায় তখন আবেগের বহিঃপ্রকাশ।

অনেক বিতর্ক, অনেক জল্পনার অবসান ঘটিয়ে শেষমেশ বৃহস্পতিবার বিধাননগর পুরসভার মেয়র পদ থেকে ইস্তফা দিলেন সব্যসাচী দত্ত। নিয়ম অনুযায়ী এতদিন তিনি সরকারি গাড়ি ও অন্যান্য সুযোগ সুবিধা পেতেন ।

মেয়র পদ থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর সেই সব সুবিধা থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন। এদিন পুরসভার গাড়িতে পুরসভায় আসেন ।কিন্তু তখনও সেই গাড়ির চালক জানতো না যে এটাই তার প্রিয় মানুষকে নিয়ে শেষ গাড়ি চালিয়ে আসা। কারণ তিনি সেখান থেকে ফিরলেন নিজের গাড়িতে৷

বৃহস্পতিবার বিকেলে পুরসভায় সাংবাদিক সব্যসাচী জানিয়ে দেন, কিছুক্ষণ আগে ইস্তফা দিয়েছেন । তারপর সরকারি গাড়ি ছেড়ে নিজের গাড়িতে পুরসভা ছাড়লেন তিনি। তবে তার বিদায় বেলায় শুধু মেয়রের গাড়ির চালক নন, তখন সেখানে দাঁড়ানো আরও অনেকেরই চোখে জল৷ ফলে গাড়িতে উঠতে গিয়েও থমকে দাঁড়ালেন সদ্য প্রাক্তন মেয়র। কিছুটা দূরে তখন পুরসভার এক আধিকারিকের চোখেও জল। গাড়ি থেকে নেমে এসে তার কাছেও যান সোজন্য বিনিময় করতে । তারপর নিজের গাড়িতে উঠে চলে যান সদ্য প্রাক্তন হয়ে যাওয়া বিধানগরের মেয়র সব্যসাচী দত্ত ।