বেঙ্গালুরু: টস ভাগ্য সঙ্গ দেয়নি বিরাট কোহলিকে৷ যদিও অস্ট্রেলিয়া টস জিতে শুরুতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় রান তাড়া করার পড়ে পাওয়া সুযোগ পেয়ে যায় টিম ইন্ডিয়া৷ ঘরের মাঠে পরে ব্যাট করাই যে ভারতের বিশেষ পছন্দের, সেটা জানার জন্য ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রয়োজন হয় না৷ টসের পর কোহলি সেটা স্বীকারও করে নেন৷

আইপিএলের সুবাদে হাতের তালুর মতো চেনা চিন্নাস্বামীতে রান তাড়া করে জেতার সুযোগ যে তুলনায় বেশি, সেটা ভালো মতোই বোঝেন বিরাট৷ তবে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজের তৃতীয় তথা নির্নায়ক ওয়ান ডে ম্যাচে জয় তুলে নেওয়া যে সহজ হবে না, তা বোঝা যাচ্ছে ম্যাচের গতিপ্রকৃতির দিকে তাকালেই৷

আরও পড়ুন: ‘কমলা ঝড়’ থামিয়ে প্রো-লিগের অভিষেকে বড় জয় ভারতের

কেননা স্টিভ স্মিথের দুরন্ত শতরান ভর করে চিন্নাস্বামীতে ভারতের সামনে কঠিন টার্গেট ঝুলিয়ে দেয় অজিরা৷ নির্ধারিট ৫০ ওভারে ৯ উইকেটের বিনিময়ে ২৮৬ রান তোলে অস্ট্রেলিয়া৷ অর্থাৎ নির্নায়ক ম্যাচ জিতে ১-১ সমতায় দাঁড়িয়ে থাকা সিরিজ নিজেদের দখলে নিতে ভারতের প্রয়োজন ২৮৭ রান৷

ইনিংসের শুরুতেই অজি শিবিরে জোড়া ধাক্কা দেয় ভারত৷ দুই ওপেনারকে ৪৬ রানের মধ্যে ফেরত পাঠায় তারা৷ ওয়ার্নার ৩ রান করে শামির বলে লোকেশ রাহুলের দস্তানায় ধরা পড়েন৷ ফিঞ্চ ১৯ রান করে রান-আউট হন৷ মার্নাস ল্যাবুসেনকে সঙ্গে নিয়ে প্রাথমিক বিপর্যয় রোধ করেন স্মিথ৷ তৃতীয় উইকেটের জুটিতে দু’জনে মিলে যোগ করেন ১২৭ রান৷

আরও পড়ুন: ১০০ বলে ঝোড়ো ১৫০, টেস্ট দলে ঢোকার জোরালো দাবি জানালেন পৃথ্বী

ল্যাবুশেন ওয়ান ডে কেরিয়ারের প্রথম হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করে সাজঘরে ফেরেন৷ ৬৪ বলে ৫৪ রান করে জাদেজার বলে কোহলির হাতে ধরা পড়েন তিনি৷ পাঁচ নম্বরে ব্যাট করতে নেমে মিচেল স্টার্ক খাতা খুলতে পারেননি৷ জাদেজার বলেই পরিবর্ত ফিল্ডার চাহালের হাতে ধরা পড়েন তিনি৷ অ্যালেক্স ক্যারি ৩৫ রান করে কুলদীপ যাদবের বলে শ্রেয়স আইয়ারের হাতে ক্যাচ দেন৷

টার্নার ৪ রান করে নভদীপ সাইনির বলে আউট হন৷ স্টিভ স্মিথ ১৪টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ১৩২ বলে ১৩১ রান করে সামির বলেই সাজঘরে ফেরেন৷ প্যাট কামিন্স (১) ও অ্যাডাম জাম্পাকে (০) একই ওভারে বোল্ড করেন শামি৷ এগর ১১ ও হ্যাজেলউড ১ রান করে অপরাজিত থাকেন৷

আরও পড়ুন: ফের চোট পেয়ে মাঠ ছাড়লেন ধাওয়ান

শামি ৬৩ রানে ৪টি উইকেট নেন৷ ৪৪ রানে ২টি উইকেট নিয়েছেন জাদেজা৷ ১টি করে উইকেট সাইনি ও কুলদীপের৷ উইকেট না পেলেও ১০ ওভারে মাত্র ৩৮ রান খরচ করেন বুমরাহ৷

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।