পোর্ট অফ স্পেন: ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ভারতের চলতি ওয়ান ডে সিরিজের শুরু থেকেই বৃষ্টি তাড়া করে বেড়াচ্ছে দু’দলকে৷ জর্জটাউনে সিরিজের প্রথম একদিনের ম্যাচ মাত্র ১৩ ওভার খেলা হওয়ার পরেই পরিত্যক্ত হয়েছিল৷ কুইন্স পার্ক ওভালে দ্বিতীয় ওয়ান ডে ম্যাচ খেলা হলেও একাধিকবার বৃষ্টি বাধ সাধে ম্যাচের গতিতে৷ এবার কুইন্স পার্কেই সিরিজের তৃতীয় তথা শেষ ওয়ান ডে ম্যাচও বাধা প্রাপ্ত হলো প্রকৃতির প্রতিবন্ধকতায়৷ এবার শুধু গতিরোধই নয়, বরং ম্যাচেও দৈর্ঘ্যেও প্রভাব ফেলল বৃষ্টি৷

দফায় দফায় বৃষ্টির জন্যই ম্যাচের দৈর্ঘ্যে কাঁচি চালাতে হয় ম্যাচ অফিসিয়ালদের৷ ৫০ ওভারের ম্যাচ কমে দাঁড়ায় ৩৫ ওভার প্রতি ইনিংসে৷ ম্যাচের মাঝপথে প্লেয়িং কন্ডিশন বদলাতে হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই ডাকওয়ার্থ-লুইস নিয়ম প্রজোয্য হলো এক্ষেত্রেও৷

আরও পড়ুন: দ্বীপরাষ্ট্রের ঘূর্ণিঝড়ে কিউয়ি তরি’র কাণ্ডারি টেলর

পোর্ট অফ স্পেনে টস জতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন৷ দুই ওপেনার ক্রিস গেইল ও এভিন লুইসের আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে ক্যারিবিয়ান ইনিংসের ভিত গড়ে দিয়ে যান৷ তবে ২২ ওভার খেলা হওয়ার পরেই বৃষ্টিতে সাময়িকভাবে বন্ধ হয়ে যায় ম্যাচ৷ সেই মুহূর্তে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোর ছিল ২ উইকেটে ১৫৮ রান৷

বৃষ্টির পর নতুন করে খেলা শুরু হওয়ার পর বাকি ১৩ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ আরও ৫টি উইকেট হারিয়ে ৮২ রান যোগ করে৷ অর্থাৎ ৩৫ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্কোর দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ২৪০ রান৷ ডাকওয়ার্থ-লুইস নিয়মে ভারতের সামনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ৩৫ ওভারে ২৫৫ রানের৷

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের যুব দলের কোচ হতে চেয়ে আবেদন সাকলিনের

ক্রিস গেইল সম্ভবত তাঁর কেরিয়ারের শেষ ওয়ান ডে ম্যাচে ৬টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে ৩০ বলে ব্যক্তিগত হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করেন৷ শেষমেশ ৮টি চার ও ৫টি ছক্কার সাহায্যে ৪১ বলে ৭২ রান করে আউট হন দ্য ইউনিভার্স বস৷ এভিন লুইস আউট হন ২৯ বলে ৪৩ রান করে৷ তিনি ৫টি চার ও ৩টি ছক্কা মারেন৷

এছাড়া শাই হোপ ৫২ বলে ৫২ বলে ২৪, হেটমায়ার ৩২ বলে ২৫, নিকোলাস পুরান ১৬ বলে ৩০, হোল্ডার ২০ বলে ১৪ ও ব্রাথওয়েট ১৪ বলে ১৬ রান করে আউট হন৷ ফ্যাবিয়ান অ্যালেন ৬ বলে ৭ রান করে অপরাজিত থাকেন৷ খাতা খোলার সুযোগ হয়নি কীমো পলের৷

আরও পড়ুন: বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত লর্ডসে অ্যাসেজ টেস্টের প্রথম দিনের খেলা

ভারতের হয়ে খলিল আহমেদ ৬৮ রানে ৩টি ও মহম্মদ শামি ৫০ রানে ২টি উইকেট দখল করেন৷ এছাড়া ১টি করে উইকেট নিয়েছেন যুবেন্দ্র চাহাল ও রবীন্দ্র জাদেজা৷ উইকেট না-পেলেও ৪ ওভারে মাত্র ১৩ রান খচর করেন কেদার যাদব৷