বিশাখাপত্তনম: চেন্নাইয়ে সিরিজের প্রথম ওয়ান ডে ম্যাচে দাপুটে জয় তুলে নিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ৷ বিশাখাপত্তনমে দ্বিতীয় ওয়ান ডে ম্যাচে ক্যারিবিয়ানদের ১০৭ রানের বড় ব্যবধানে পরাজিত করে ভারত৷ সেই সঙ্গে ৩ ম্যাচের সিরিজে ১-১ সমতা ফেরায় টিম ইন্ডিয়া৷

টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ভারত নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৫ উইকেটের বিনিময়ে ৩৮৭ রান তোলে৷ দুরন্ত শতরান করেন দুই ওপেনার রোহিত শর্মা ও লোকেশ রাহুল৷ জবাবে ব্যাট করতে নেমে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৪৩.৩ ওভারে ২৮০ রানে অল-আউট হয়ে যায়৷ ব্যর্থ হয় শাই হোপ ও নিকোলাস পুরানের লড়াই৷ প্রথম ভারতীয় হিসাবে ওয়ান ডে তথা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দ্বিতীয় হ্যাটট্রিক করেন কুলদীপ যাদব৷

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপে ব্যর্থতার জন্য টিম ম্যানেজমেন্টকে একহাত নিলেন যুবরাজ

‘ডু অর ডাই’ ম্যাচে এদিন টসভাগ্য সঙ্গ দেয়নি ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে। প্রথম ম্যাচের পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে ভাইজ্যাগেও টস জিতে ভারতীয় দলকে প্রথমে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানান ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক কায়রন পোলার্ড। কিন্তু ক্যারিবিয়ান অধিনায়কের প্রথমে ফিল্ডিং নেওয়ার সিদ্ধান্ত এদিন ব্যুমেরাং সাব্যস্ত হয়৷ দুই ওপেনার রোহিত ও লোকেশ ভারতকে বড় রানের ভিতে বসিয়ে দেন৷

রোহিত ও লোকেশ ওপেনিং জুটিতে ২২৭ রান যোগ করেন৷ রোহিত ১৫৯ রান করে আউট হন৷ তিনি ১৭টি চার ও ৫টি ছক্কা মারেন৷ লোকেশ ৮টি চার ও ৩টি ছক্কার সাহায্যে ১০৪ বলে ১০২ রান করে সাজঘরে ফেরেন৷ খাতা খুলতে পারেননি কোহলি৷ শ্রেয়স আইয়ার ৩টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে ৩২ বলে ৫৩ রান করেন৷ ঋষভ পন্তও ৩টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে ১৬ বলে ৩৯ রান করে আউট হন৷ কেদার যাদব ১০ বলে ১৬ রান করে অপরাজিত থাকেন৷

আরও পড়ুন: প্রথম ভারতীয় হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দ্বিতীয় হ্যাটট্রিক কুলদীপের

ভারতের খারাপ ফিল্ডিংয়ের সুযোগ নিয়ে শাই হোপ ও নিকোলাস পুরান ক্রিজে ঝড় তোলেন৷ ইনিংসের প্রথম ওভারেই হোপের ক্যাচ ছাড়েন রাহুল৷ তিনি আউট হন ৮৫ বলে ৭৮ রান করে৷ ২২ রানের মাথায় পুরানের সহজ ক্যাচ ছাড়েন দীপক চাহার৷ তিনি ৪৭ বলে ৭৫ রান করে সাজঘরে ফেরেন৷ এছাড়া কীমো পল ৪৬ ও লুইস ৩০ রান করেন৷ শূন্য রানে আউট হন পোলার্ড৷

কুলদীপ যাদব ইনিংসের ৩৩তম ওভারের চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ বলে যথাক্রমে শাই হোপ, জেসন হোল্ডার ও আলজারি জোসেফের উইকেট তুলে নেন৷ মহম্মদ শামি তুলে নেন পুরান, পোলার্ড ও কীমো পলের উইকেট৷ এছাড়া ২টি উইকেট নিয়েছেন রবীন্দ্র জাদেজা৷ ১টি উইকেট শার্দুল ঠাকুরের৷ ম্যাচের সেরা হয়েছেন রোহিত৷