বেঙ্গালুরু: মুম্বইয়ের দাপুটে জয়ে সিরিজের শুরুতেই লিড নেয় অস্ট্রেলিয়া৷ রাজকোটে ঘুরে দাঁড়িয়ে সিরিজে ১-১ সমতা ফেরায় ভারত৷ বেঙ্গালুরুর তৃতীয় তথা নির্নায়ক ওয়ান ডে ম্যাচে জয় তুলে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে তিন ম্যাচের একদিনের সিরিজ ২-১ ব্যবধানে পকেটে পোরে টিম ইন্ডিয়া৷

টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া ৫০ ওভারে ৯ উইকেটের বিনিময়ে ২৮৬ রান তোলে৷ লড়াকু শতরান করেন স্টিভ স্মিথ৷ পালটা ব্যাট করতে নেমে ভারত ৪৭.৩ ওভারে ৩ উইকেটের বিনিময়ে ২৮৯ রান তুলে ম্যাচ জিতে যায়৷ টিম ইন্ডিয়াকে দায়িত্বসহকারে জয়ের মঞ্চে দাঁড় করিয়ে দেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও সহ-অধিনায়ক রোহিত শর্মা৷ বরং বলা ভালো ভাইস ক্যাপ্টেন রোহতিই এদিন ভারতের ৭ উইকেটে জয়ের ব্লু-প্রিন্ট ছকে দেন৷

আরও পড়ুন: দুরন্ত শতরানে জয়সূর্যকে টপকালেন হিটম্যান

ম্যাচ শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই ভারতীয় শিবির বড়সড় ধায় শিখর ধাওয়ান চোট পেলে৷ গব্বরের ব্যাট করতে নামা নিয়ে ঘোর সংশয় ছিল৷ অর্থাৎ ব্যাটিং শুরুর আগেই ভারত কার্যত এক উইকেট হারিয়ে বসেছিল৷ এই অবস্থায় রোহিতের সঙ্গে ওপেনে ফেরেন লোকেশ রাহুল৷ তবে সিরিজের তিনটি ম্যাচে তিনটি আলাদা ব্যাটিং পজিশনে নিজেকে যথাযথ মানিয়ে নিতে পারননি কেএল৷ তিনি ব্যক্তিগত ১৯ রানের মাথায় সাজঘরে ফেরেন৷ তবে ওপেনিং জুটিতে ৬৯ রান যোগ করে ভিত তৈরির কাজ যথাযথ করেন রাহুল৷

কোহলির সঙ্গে দ্বিতীয় উইকেটের জুটিতে ১৩৭ রান যোগ করেন হিটম্যান৷ শেষে রোহিত আউট হন ব্যক্তিগত ১১৯ রানের মাথায়৷ ১২৮ বলের ইনিংসে ৮টি চার ও ৬টি ছক্কা মারেন হিটম্যান৷ কোহলিকে ব্যক্তিগত শতরানের দোরগোড়া থেকে ফিরতে হয়৷ ৮টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৯১ বলে ৮৯ রান করে উইকেট দিয়ে আসেন বিরাট৷ মণীশ পান্ডেকে সঙ্গে নিয়ে দলকে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে দেন শ্রেয়স আইয়ার৷ শ্রেয়স অপরাজিত থাকেন ৩৫ বলে ৪৪ রান করে৷ তিনি ৬টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন৷ মণীশ ২টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৪ বলে ৮ রান করে নট-আউট থাকেন৷

আরও পড়ুন: ফের চোট পেয়ে মাঠ ছাড়লেন ধাওয়ান

তার আগে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ১৪টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে ১৩২ বলে ১৩১ রান করেন স্টিভ স্মিথ৷ মার্নাস ল্যাবুশেন করেন ৬৪ বলে ৫৪ রান৷ অ্যালেক্স ক্যারি যোগদান রাখেন ৩৫ রানের৷ শামি ৬৩ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট দখল করেন৷ ৪৪ রানে ২টি উইকেট নেন জাদেজা৷ ম্যাচের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হন রোহিত৷ সিরিজ সেরার পুরস্কার ওঠে কোহলির হাতে৷