স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: একুশের মঞ্চ থেকে মমতার পাল্টা দিলেন উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদিকা পৃথা বিশ্বাস৷ তিনি বলেন, শিক্ষকরা যদি রাজ্য থেকে সবাই চলে যায় তাহলে এগিয়ে বাংলার কি হবে৷ রবিবার একুশের মঞ্চ থেকে নাম না করে সল্টলেকে আন্দোলনকারী প্রাইমারি শিক্ষকদের কটাক্ষ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন,‘‘যাঁরা কেন্দ্রীয় সরকারের মতো বেতন চান, তাঁরা কেন্দ্রে যান। দিল্লির চাকরি করুন। আমার কোনও আপত্তি নেই।’’

এই বিষয় উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদিকা পৃথা বিশ্বাস তার প্রতিক্রিয়ায় জানান, ‘‘আমাদেরকে রাজ্য সরকারই কেন্দ্রীয় মানের যোগ্যতায় নিয়ে গিয়েছে৷ সর্বভারতীয় যোগ্যতা সম্পন্ন শিক্ষকরা যদি সত্যিই সর্বভারতীয় জায়গায় চলে যায়, তাহলে পশ্চিমবঙ্গের কি হবে৷ শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এগিয়ে বাংলা৷ শিক্ষা ছাড়াতো বাংলা এগিয়ে থাকতে পারে না৷ শিক্ষকরা যদি সবাই চলে যায়,তাহলে এগিয়ে বাংলার কি হবে৷’’

এদিন সল্টলেকে শিক্ষকদের অনশন মঞ্চে আসেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়৷ অনশনরত শিক্ষক শিক্ষিকাদের সঙ্গে কথা বলেন৷

তারপর জানান, তিনি দিল্লিতে মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের সঙ্গে কথা বলবেন৷ তাছাড়া শিক্ষকদের দাবিদাওয়া নিয়ে তিনি নিজে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি লিখবেন৷ উল্লেখ্য, ৯ দিন ধরে উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারি টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের ১৮ জন শিক্ষক ও শিক্ষিকা অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন৷ তবে তাদের ধর্না চলছে ১০ দিন ধরে৷ সেখানে হাজার হাজার শিক্ষক শিক্ষিকারা সামিল হয়েছেন৷ পিআরটি স্কেল ও ১৪ জন শিক্ষককে ফিরিয়ে আনার দাবিতে চলছে আমরন অনশন৷

গতকাল অর্থাৎ শনিবার আন্দোলনকারীদের ৫ জনের একটি প্রতিনিধি দল শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে দেখাও করেও বেতন পরিকাঠামো পুনর্বিন্যাসের কোনও আশ্বাস না মেলায় অনশনে অনর তারা৷ সল্টলেকের বিধান চন্দ্র রায়ের মূর্তি পাদদেশ অর্থাৎ ওয়াই চ্যানেলে চলছে আমরণ অনশন৷ সংগঠনের অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গে বর্তমানে যদি কোনও স্কুলে শিক্ষক বা শিক্ষিকা নতুন জয়েন্ট করেন তাহলে তার নেট বেতন প্রায় ২১ হাজার ৫০০ টাকা। সপ্তম পে কমিশন অনুযায়ী যা অন্য রাজ্যে প্রায় ৪২ হাজার টাকা। এই বেতন বৈষম্যের জন্যই আন্দোলনে নেমেছেন এই রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষক শিক্ষিকাদের একাংশ ।

সপ্তম পে কমিশনের আগে পিআরটি স্কেল দেখুন

গ্রেড পে: ৪,২০০ টাকা।
পে স্কেল: ৯,৩০০ – ৩৪,৮০০ টাকা।
বেসিক বেতন: ৩৫,৪০০ টাকা।
গ্রোস বেতন : প্রায় ৪০,২৪০ টাকা।
নেট বেতন : প্রায় ৩৭,০০০ টাকা।

কিন্তু শিক্ষক শিক্ষিকাদের কোনও ট্রান্সপোর্ট ভাতা দেওয়া হয় না বলে সংগঠনের দাবি।

তাছাড়া সংগঠনের সদস্য সায়ন মিত্রের অভিযোগ, যেখানে সারা ভারতের পিবি ফোর এর গ্রেড পে ৪ হাজার ২০০ টাকা, সেখানে পশ্চিমবঙ্গের প্রাথমিক শিক্ষকদের পিবি ২ এর গ্রেড পে ২ হাজার ৬০০ টাকা। এই বেতন বৈষম্যের জন্যই শিক্ষক শিক্ষিকারা রাস্তায় নামতে বাধ্য হয়েছে।