কলকাতা: ফের একবার উত্তাল হল যাদবপুর। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকাকে ‘হেনস্থা’র অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে।

সোমবার সন্ধ্যায় নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের সমর্থনে বিজেপির পথসভা চলাকালীন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপিকাকে হঠাৎই কিছু লোকজন মারতে দেখা যায়। ঘটনাস্থলে দু’জন পড়ুয়া পৌছে পরিস্থিতি সামাল দিতে চাইলে তাঁদেরও মারা হয় বলেই অভিযোগ করা হয়েছে।

এদিনের ঘটনার পর যাদবপুর থানার সামনে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেছে ছাত্ররা। একজন ছাত্র জানিয়েছে, তাঁরা কেন মারছিলেন ওই মহিলাকে যানতে চাওয়া হলে তাঁরা চুল ধরে টেনে ফেলে দেওয়া হয়। পাশে আরও একজন ছাত্রকে মারতে দেখা যায়।

যাদবপুরের পড়ুয়ারা অভিযোগ করেন, এই কাজ বিজেপি-আরএসএসের গুন্ডাদের। কারণ তাঁদের মুখের ভাষাই প্রমাণ করে দিয়েছে তাঁরা বিজেপি ও আরএসএস।

বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, বিজেপির কেউ এই ঘটনায় জড়িত নয়। সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন অভিযোগ। অভিযোগ, এদিন ৮বি বাসস্ট্যান্ডের সামনে সমাবেশ ছিল বিজেপির।

এক ছাত্রের অভিযোগ, যারা মারছিলেন তাঁরা সকলেই ওই পথসভার মঞ্চের পিছনের দিকে ঘরের ভেতর বসেছিলেন। এই ঘটনার ভিত্তিতে যাদবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।