স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: দীর্ঘদিন একই স্কুলে শিক্ষা দান করার পর চাকরি জীবন থেকে অবসর নেওয়ার আগে স্কুল তহবিলে আর্থিক অনুদান করলেন শিক্ষক৷ পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তমলুক থানার খারুই ইউনিয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বিশ্বনাথ প্রধান ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা স্কুল তহবিলে দান করলেন৷

স্কুলের প্রধান শিক্ষকের হাতে চেক তুলে দিলেন বিশ্বনাথ বাবু৷ এরআগে তিনি শিক্ষারত্ন সম্মান পান। শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের হাত থেকে পাওয়া তাঁর সেই ২৫ হাজার টাকাও স্কুলকে দান করলেন এই শিক্ষক৷ আর কয়েকদিন পর বিশ্বনাথ বাবু চাকরি জীবন থেকে অবসর নেবেন।

তিনি লক্ষ্য করেছিলেন স্কুলে খেলাধুলো থেকে ছাত্রছাত্রীরা বিমুখ৷ কারন স্কুলে খেলাধুলার সরঞ্জাম তেমন নেই। তাই স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের মাঠমুখি করার জন্য খেলাধুলার সরঞ্জাম যাতে তাঁর অনুদানের টাকায় কেনা যায়, তারও অনুরোধ জানান তিনি।

বিশ্বনাথ বাবু ইতিহাসের শিক্ষক হলেও, স্কুলে সংস্কৃত চর্চা করতেন। কখনও এনসিসি প্রোগ্রাম, কখনও স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে খেলাধুলায় মেতে থাকতেন। এইভাবে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের মণিকোঠায় জায়গাও করে নিয়েছেন বিশ্বনাথ বাবু। শুধু শিক্ষক হিসেবে নয়, নিজের সন্তানের মতন ভালবাসতেন তাঁদের এই শিক্ষক৷ তাই ছাত্র-ছাত্রী থেকে অভিভাবক-অভিভাবিকা ও সহশিক্ষক, শিক্ষা কর্মী ও শিক্ষা মন্ডলীর সবাইয়ের খুব কাছের মানুষ ছিলেন তিনি৷

আর কয়েক দিনের পরেই বিশ্বনাথ বাবুকে বিদায় জানাবেন তাঁর প্রিয় স্কুলকে৷ ছাত্রছাত্রীরা জানান ‘হয়তো আগের মত আমাদের প্রিয় মাষ্টারমশাইকে স্কুলে দেখতে পাবো না। আমরা মাষ্টারমশাইকে সবসময়ই অনুভব করব। তিনি শুধু আমাদের শিক্ষক নন, অভিভাবক ও বন্ধু হিসেবেই মেলামেশা করতেন।’

আরও পড়ুন : সতী প্রথা, বাল্যবিবাহ বন্ধ হয়েছে তিন তালাকও বন্ধ হওয়া উচিৎ: ইসরত জাহান

শিক্ষক বিশ্বনাথবাবু জানান ‘স্কুলের মাঠমুখী করে তুলতে চান তিনি তাঁর প্রিয় ছাত্রছাত্রীদের৷ যদি এই স্কুলের খেলাধুলার সরঞ্জাম আরও কেনা হয়, তবে ছাত্র ছাত্রীদের খেলাধুলোর প্রতি আগ্রহ বাড়বে৷ পড়াশুনা যেমন দরকার তেমনি ছাত্র-ছাত্রীদের খেলাধুলার প্রয়োজন। এখনকার ছাত্রছাত্রীদের খেলার প্রতি বড় অনীহা। স্কুলে পড়াশোনার চাপ, টিউশনিতে অতিরিক্ত পড়াশোনার পর অবশ্যই খেলাধুলোর দরকার বলে জানান এই শিক্ষক৷

ছাত্রছাত্রীদের সুস্থ থাকার পিছনে তাই তাঁর এই ক্ষুদ্র প্রয়াস বলেও জানান বিশ্বনাথ বাবু। এই প্রয়াসকে কুর্নিশ জানান অভিভাবক অভিভাবিকা থেকে এলাকাবাসী, পার্শ্ব শিক্ষক, সহ শিক্ষক, শিক্ষা কর্মীরা প্রত্যেকে৷