সঞ্জয় কর্মকার, বর্ধমান: প্রশাসনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে, বেড়েই চলেছে নারী নির্যাতন৷শিশুদের উপর অত্যাচারের পরিসংখ্যান ও আকাশ ছুঁইছুঁই৷এবার চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীদের শ্লীলতাহানি করার অভিযোগে এক স্কুল শিক্ষককে গ্রেফতার করল পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে, কাটোয়ার আলমপুর গ্রামের আলমপুর বয়েজ অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

অভিযোগ, ওই বিদ্যালয়েরই এক শিক্ষক দিনের পর দিন ওই বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীদের ওপর যৌন অত্যাচার চালাতেন৷ এর প্রতিবাদে সোমবার দুপুর থেকে স্কুল ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয় গ্রামবাসী এবং অভিভাবকরা। অভিযুক্ত শিক্ষককে মারধোর করে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। স্থানীয় গ্রামবাসী শিশির হাজরা জানিয়েছেন, বেশ কিছুদিন ধরেই এই স্কুলের শিক্ষক বিকাশ হালদার চতুর্থ শ্রেণির ৫ জন ছাত্রীর উপর নানাভাবে যৌন নিপীড়ন চালাচ্ছিলেন। ভয়ে স্কুল ছাত্রীরা কিছু বলতে পারেনি। কিন্তু সোমবার দুপুরে স্কুলের ক্লাসরুমেই এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানি করার সময় তা দেখতে পেয়ে যান কয়েকজন। এরপরই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে গোটা এলাকায়। খবর পেয়ে স্কুলে জড়ো হন গ্রামবাসী এবং অভিভাবকরা। বিকাশ হালদারকে ঘেরাও করে মারধোরও করা হয়। এই সময়ই স্কুলের নির্যাতিতা ছাত্রীরা সকলের সামনেই ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন বলে জানিয়েছেন শিশির বাবু।

গোটা ঘটনায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে  কাটোয়া থানা থেকে পুলিশ এসে স্কুলের প্রধান শিক্ষক দেবীপ্রসাদ মণ্ডল এবং নির্যাতিতা ছাত্রীর বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত শিক্ষককে গ্রেফতার করেন। প্রধান শিক্ষক জানিয়েছেন, বিকাশ হালদার দীর্ঘ প্রায় ৭ বছর ধরে এই স্কুলে শিক্ষকতা করছেন। এর আগে কখনও তাঁর বিরুদ্ধে এই ধরণের অভিযোগ ওঠেনি। ধৃত শিক্ষকের বাড়ি কাটোয়ার মোস্তাপুর গ্রামে। কাটোয়া থানার পুলিশ জানিয়েছে, এদিনই ওই শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। আগামীকাল তাঁকে কাটোয়া মহকুমা আদালতে তোলা হবে। অন্যদিকে, অভিযুক্ত ওই শিক্ষক বিকাশ হালদার জানিয়েছেন, তাঁকে মিথ্যা অভিযোগ ফাঁসানো হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগকে সম্পূর্ণ মিথ্যা বলে দাবি করে তিনি জানিয়েছেন, পড়াতে গিয়ে কোনওকারণে ছাত্রছাত্রীদের গায়ে হাত লেগে যেতে পারে। কিন্তু কখনই তা শ্লীলতাহানি করা নয়।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি বর্ধমান শহরের শিয়ালডাঙা বিধানপল্লী এলাকাতেই একইভাবে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ ওঠে। ওই শিক্ষককে মারধোর করার পাশাপাশি জুতোর মালা ও পরানো হয়।