কীভাবে টাকা বাঁচাবেন

বর্তমান প্রজন্মের বাচ্চারা খুব তাড়াতাড়ি ভার্চুয়ালি শিখে নিচ্ছে কীভাবে তাঁরা খরচ করবে, এবং সেই সব জিনিস অনলাইন মারফৎ কিনবে যা তাঁদের কাছে ফ্যাশানবল। কিন্তু সেই সঙ্গে এটাও শেখা উচিৎ, কীভাবে তাঁরা টাকা জমাবে। আগেকার দিনে, বাবা মায়েরা সন্তানদের পিগি ব্যাংক বা লক্ষ্মীর ঘট দিতেন। যাতে টাকা জমাতে জমাতে সন্তানদের মধ্যে সঞ্চয়ের একটা অভ্যাস গড়ে উঠত। কিন্তু এখন সে সব অতীত। কিভাবে নিজের সন্তানকে সঞ্চয়ী করে তুলবেন ?

আমিত কুকরেজা নামে এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ জানাচ্ছেন, ছোটবেলা থেকেই বাচ্চাদেরকে বিনিয়োগের ব্যাপারে ধারণা দেওয়া উচিৎ। ছোটবেলা থেকেই তাঁদের এ ব্যাপারে দায়িত্ববান করে তোলা উচিৎ। অমিত জানিয়েছেন, বাড়ির বাজেট প্ল্যানিং-এর সময়ে অবশ্যই বাচ্চাদের রাখা উচিৎ। এটা তাঁদেরকে বিনিয়োগ, সঞ্চয়-এর ব্যাপারে শেখায় বলে তিনি মনে করেন।

আরও পড়ুন – অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, দিনে মাত্র ৭৭ টাকাতেই পান নতুন বাইক

এছাড়া তিনি বাচ্চাদেরকে বেশ কয়েকটি জিনিস শেখানোর কথা বলেছেন। অমিত কুকরেজা মনে বাচ্চাদের সঙ্গে একবার হলেও বিনিয়োগের ব্যাপারে কথা বলা উচিৎ। এক্ষেত্রে বাচ্চার মত নেওয়ার প্রয়োজন না থাকতে পারে বটে। কিন্তু এই আলোচনা আপনার সন্তানকে বিনিয়োগের ব্যাপারে আগ্রহী করে তুলতে পারেন।

এছাড়া সন্তানরা নিজেদের ক্যারিয়ারে কী হতে চায় ? কী করতে চায়, এ ব্যাপারে খোলাখুলি তাঁর সঙ্গে আলোচনার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি পড়াশোনার ব্যয় নিয়ে আলোচনা করতে বলেছেন তিনি। এই ছোটছোট পদক্ষেপগুলি সন্তানকে বিনিয়োগের ব্যাপারে উৎসাহী করে তোলে।

বাড়ির বাচ্চাদেরকে নানান বাড়ির জিনিস কেনাকাটা করার ব্যাপারে পার্টনার করতে পারেন। তাঁদেরকে ছোটবেলা থেকে টাকা পয়সা বিনিয়োগ বুঝিয়ে দিন।