সিডনি: ওয়ান-ডে ক্রিকেটে নিউজিল্যান্ডের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হিসেবে স্টিফেন ফ্লেমিংকে টপকে গিয়েছিলেন ২০১৯ ফেব্রুয়ারিতেই। সোমবার সিডনিতে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সিরিজের তৃতীয় তথা অন্তিম টেস্টের চতুর্থদিন নিউজিল্যান্ড ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটেও সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হলেন রস টেলর। এক্ষেত্রেও দেশের প্রাক্তন অধিনায়ক ফ্লেমিংকে পিছনে ফেললেন কিউয়ি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান।

সিরিজ হারতে হয়েছিল আগেই। সোমবার সিডনিতে পিঙ্ক টেস্টের চতুর্থদিন অস্ট্রেলিয়ার কাছে হোয়াইটওয়াশ হতে হল কিউয়িদের। তবে দলের বিপর্যয়ের দিন ব্যক্তিগত মাইলস্টোন স্পর্শ করলেন নিউজিল্যান্ডের প্রাক্তন অধিনায়ক। কেরিয়ারের ৯৯তম টেস্টে দেশের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক স্টিফেন ফ্লেমিংকে টপকে গেলেন টেলর। ১১১টি টেস্টে এতদিন ফ্লেমিংয়ের সংগৃহীত ৭,১৭২ রানই এতদিন ছিল সর্বোচ্চ। কিন্তু সিডনি টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংসে নিউজিল্যান্ড ইনিংসের ১৮তম ওভারে ফ্লেমিংকে টপকে সর্বোচ্চ রানসংগ্রাহক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করলেন রস।

যদিও মাইলস্টোন স্পর্শ করার পর দীর্ঘায়িত হয়নি টেলরের ইনিংস। পরের ওভারেই প্যাট কামিন্সের শিকার হন তিনি। ব্যক্তিগত ২২ রানে যখন মাঠ ছাড়ছেন, টেলরের নামের পাশের তখন জ্বলজ্বল করছে ৭,১৭৪ টেস্ট রান। ঝুলিতে ১৯টি শতরান ও ৩৩টি অর্ধশতরান। টেলর, ফ্লেমিংয়ের পর কিউয়ি ব্যাটসম্যান হিসেবে সর্বোচ্চ টেস্ট রান সংগ্রহের নিরিখে তালিকায় তৃতীয়স্থানে রয়েছেন ব্রেন্ডন ম্যাককালাম (৬,৪৫৩)। চতুর্থস্থানে মার্টিন ক্রো (৫,৪৪৪)।

মাইলস্টোন সেট করার অনতিপরেই টেলরকে অভিনন্দন জানিয়ে টুইট করেন প্রাক্তন সতীর্থ ব্রেন্ডন ম্যাককালাম। টুইটারে তিনি লেখেন, ‘যোগ্য হিসেবেই তুমি আজ শীর্ষে। তুমি যা অর্জন করেছো তার জন্য অভিনন্দন।’ তবে টেলরের এই মাইলস্টোন কোনওভাবেই প্রভাব ফেলেনি অস্ট্রেলিয়া শিবিরে। নাথান লায়নের দুরন্ত স্পিনে সিডনিতে পিঙ্ক টেস্টে নিউজিল্যান্ডকে ২৭৯ রানে হারাল অস্ট্রেলিয়া। সেই সঙ্গে তিন টেস্টের সিরিজে কিউয়িদের হোয়াইটওয়াশ করল অজিবাহিনী।

ডেভিড ওয়ার্নারের অপরাজিত ১১১ রানের সৌজন্যে দ্বিতীয় ইনিংসে ২ উইকেটে ২১৭ রান তুলে ডিক্লেয়ার করে অস্ট্রেলিয়া। ৪১৬ রান তাড়া করতে গিয়ে এদিন ভয়ঙ্কর ব্যাটিং বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয় কিউয়িরা। মাত্র ১৩৬ রানে শেষে হয়ে যায় তাঁদের দ্বিতীয় ইনিংস। ৫০ রান দিয়ে পাঁচটি উইকেট তুলে নেন লায়ন। ম্যাচে ১০ উইকেট নিয়ে অজিদের জয়ে বড় ভূমিকা নেন অভিজ্ঞ এই অফ-স্পিনার। ম্যাচের পাশাপাশি সিরিজ সেরা মার্নাস ল্যাবুশেন। প্রথম ইনিংসে দ্বিশতরানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে অর্ধশতরান করেন তিনি।