নয়াদিল্লি: গ্রাহকদের সুবিধার্থে আয়কর দফতর নিয়ে আসতে চলেছে ই-প্যানের সুবিধা৷ এই প্রক্রিয়ায় আয়কর দফতরের সঙ্গে গ্রাহকদের কোনোরকম সরাসরি যোগাযোগ ছাড়াই পাওয়া যাবে প্যান কার্ড৷ সময়ও লাগবে না তার জন্য। অত্যন্ত দ্রুত পেয়ে যাবেন সেই কার্ড।

সুবিধাটি গ্রাহকরা পাবেন একেবারে বিনামূল্যে৷ আয়কর দফতরের অফিশিয়াল পোর্টাল থেকে ই-প্যানের সুবিধাটি পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ৷ বৈধ কর প্রদানকারীরাই ই-প্যানের সুযোগটি পাবেন৷ তবে, কোন সংস্থা, ট্রাস্ট সহ হিন্দু আনডিভাইডেড ফ্যামিলিরা ই-প্যানের জন্য আবেদন করতে পারবেন না৷ প্রথম দফায় নির্দিষ্ট সময়সীমা রাখা হয়েছে প্রক্রিয়াটির জন্য৷

ই-প্যানের জন্য কোনরকম তথ্য জমা দিতে হবে না গ্রাহকদের৷ আধার কার্ডের যাবতীয় তথ্যের উপর ভিত্তি করেই তৈরি করা হবে ই-প্যান কার্ডটি৷ তবে, আধার কার্ডের তথ্যগুলিকে আপডেটেড হতে হবে৷ কারণ, ই-কেওয়াইসি ভেরিফিকেশনটি হবে এই আপডেটেড তথ্যের উপর ভিত্তি করেই৷

ই-কেওয়াইসি পদ্ধতিটি শেষ হলে তবেই প্রাথমিকভাবে ই-প্যানের প্রক্রিয়াটি শুরু হবে৷ তবে, আয়কর দফতরের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে তথ্য আপলোডের সময় প্রয়োজন পড়বে গ্রাহকের স্ক্যান করা সিগনেচারের৷ পুরো প্রক্রিয়াটি শেষ হলে ইউজার রেজিস্টার করা মোবাইল নম্বর অথবা ই-মেলের মাধ্যমে একটি ১৫ ডিজিটের নম্বর পাবেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.