আগরতলা: বাম জমানার অবসান ঘটিয়ে ত্রিপুরায় বিজেপির জয়ের পর রাজ্যজুড়ে অশান্তি দেখা গিয়েছে ৷ আক্রান্ত হচ্ছেন বাম সমর্থকরা৷ পূর্বসূরীদের কাজের কোনও চিহ্নই রাখতে না চাওয়ার মনোভাবের জেরে ভেঙে দেওয়া হয়েছে লেনিনের মূর্তি৷ আর সেই মূর্তি ভাঙাকে সমর্থন করতে দেখা গিয়েছে বিজেপি সমর্থকদের৷

এমনকি সেই মনোভাব প্রকাশ করে বিতর্কে জড়িয়েছেন খোদ ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথা বিজেপি নেতা তথাগত রায়। রবিবার দক্ষিণ ত্রিপুরার বেলোনিয়ায় কলেজ স্কোয়ারে ‘ভারত মাতা কি জয়‍’ স্লোগান দিতে দিতে উন্মত্ত জনতা লেনিনের পূর্ণাবয়ব মূর্তিটি বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেয়।

এই ঘটনার পরেই বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব তাঁর অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন টুইট করে৷ তিনি টুইটে লেখেন, ‘জনতা লেনিনের মূর্তি ভাঙছে….রাশিয়ায় নয়, এটা ত্রিপুরার ।একই ভাষায় টুইট করতে দেখা গিয়েছে ত্রিপুরার রাজ্যপাল তথাগত রায়কে।

সেখানে তিনি লেখেন, ‘একটি নির্বাচিত সরকারের কীর্তি অন্য নির্বাচিত সরকারের ধ্বংস করার অধিকার রয়েছে।’ ওই টুইট দেখে নানা মন্তব্য ঘুরতে থাকে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷

এমনিতেই সোমবারের লেনিন মূর্তি ভাঙার ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তে দেশজুড়ে প্রতিবাদে ঝড় উঠতে দেখা গিয়েছে৷ ওই মূর্তি ভাঙার ছবি ও ভিডিও দেখে অনেকেই আশংকা প্রকাশ করেছেন ভবিষ্যতে দুবৃত্তরাজের। শনিবার ভোটের ফল প্রকাশের পরেই রাজ্যজুড়ে নানা জায়গায় সংঘ‌র্ষ, ভাঙচুর খবর এসেছে। ত্রিপুরাজুড়ে অশান্তির ঘটনায় এখনও প‌র্যন্ত ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে এই টুইটের বিষয়ে তথাগত রায় কোনও মন্তব্য করতে চাননি৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.