কলকাতা: নিজে লাল-হলুদ সমর্থক হয়েও ইস্টবেঙ্গলের শতবর্ষে বাঙালদের অত্যুৎসাহে সহমত হতে পারেননি তথাগত রায়৷ উলটে লাল-হলুদের আনন্দ-উৎসবে মধ্যে বিতর্কিত মন্তব্য করে ইস্টবেঙ্গল সমর্থকদের আঘাত করেছিলেন মেঘালয়ের রাজ্যপাল। পরে অবশ্য সোশাল মিডিয়ায় লাল-হলুদ সমর্থকদের ক্ষোভের আঁচ পেয়ে দুঃখপ্রকাশ করেন তথাগত রায়৷

বৃহস্পিতবার ১ অগস্ট শতবর্ষে পা-দিচ্ছে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব৷ রবিবার থেকেই শুরু হয়ে গিয়েছে লাল-হলুদের শতবর্ষের অনুষ্ঠান৷ পদযাত্রা থেকে সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান আবেগে ভেসেছে লাল-হলুদ সমর্থকরা৷ কিন্তু এর মাঝেই প্রশ্ন তোলেন সর্বদায় বিতর্কের কেন্দ্রে থাকা তথাগত৷ মঙ্গলবার সকালে টুইটারে তিনি লেখেন, পশ্চিমবঙ্গে বসবাস করে ইস্টবেঙ্গল ক্লাবকে সমর্থন কেন? এখানে থেকে ইস্টবেঙ্গলকে সমর্থন কী করে করেন আপনারা?’

স্বভাবতই মেঘালয়ের রাজ্যপালের পোস্ট ঘিরে শুরু হয় বিতর্ক৷ পরে ‘ড্যামেজ কন্ট্রোল’ করে আরও একটি টুইট করেন তাথাগত৷ বাংলায় তিনি লেখেন, ‘ভাষার সমস্যা হতেই পারে-বিদেশী ভাষা তো! যদি আমি পাঁচ মিনিটের জন্য ঠান্ডা মাথায় ভাবি, ওয়েস্ট বেঙ্গলে থেকে কেন আমি ইস্টবেঙ্গল সমর্থক, তাহলেই সত্যটা বেরিয়ে আসবে-আমার বাড়ি ছিল পূর্ববাংলায়, সেখানে আমার যাবার অধিকার নেই৷ আমার বক্তব্য, এই কথাটা যেন আমরা বাঙালরা কখনও ভুলে না যাই৷’

কিন্তু তাতেও চিড়ে ভেজেনি৷ বেগতিক দেখে রাতের দিতে তাঁর মন্তব্যের জন্য দুঃখ প্রকাশ করে নেন তথাগত৷ টুইটারে তিনি লেখেন, ‘আমি দেখছি আমার একটি টুইট সম্পূর্ণ ভুল বুঝে প্রচুর ইস্টবেঙ্গল সমর্থক মর্মাহত হয়েছেন৷ আমি নিজে আবাল্য ইস্টবেঙ্গল সমর্থক হওয়ায় এর জন্য অত্যন্ত দুঃখিত৷ অনেকে কাঁচা ভাষায় গালাগালিও দিয়েছেন-কি আর করা যাবে? ক্ষোভের প্রকাশ বলেই মেনে নিতে হচ্ছে৷’

মেঘালয়ের রাজ্যপাল তথাগত রায়ের এই টুইট ঘিরেই বিতর্কের ঝড় উঠেছে কলকাতা ময়দানে। স্বাভাবিকভাবেই এমন টুইটে ক্ষুব্ধ লাল-হলুদ সমর্থকরা। একটি ক্লাবের নাম ইস্টবেঙ্গল বলেই যে পশ্চিমবঙ্গে বসে তাকে সমর্থন করা যায় না, এমন কথার কোনও যুক্তি খুঁজে পাচ্ছেন না তাঁরা৷ কেউই। দেশভাগের এত বছর পরেও কেন এ মন্তব্য? ১৯২০ সালে জন্ম ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের। সেখানে তথাগতর এই মন্তব্যের সারবত্তা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই।