কলকাতা : দুর্গাপুজোর সময়ে নিজেদের সংস্থাকে তুলে ধরতে না চায় এম্ন সংস্থা পাওয়া কঠিন। একটা বিশাল মার্কেট জুড়ে থাকে এই সময়ে। এবারে অনেকক্ষেত্রে ভাটা থাকলেও সংস্থা নিজেদের বিজ্ঞাপনের জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন। ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য সামনে রাখছে দুর্গার মুখ। চেষ্টা করেছে টাটা টি’ও। যদিও পুজোর সময়ে বাঙালি মুরগি মটন খোঁজে কিন্র্য ফাঁকে ফাঁকে চা’ও জমিয়ে দেয় আড্ডা।

দুর্গাপূজার আঙ্গিকে উৎসবের মেজাজে পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি প্রান্ত মজা, খাবার এবং আনন্দ উদ্দীপনায় মেতে ওঠে। পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতির মূল কেন্দ্রে রয়েছে এই উৎসব, যা প্রতিটি কোনায় ছড়িয়ে দেয় আনন্দধ্বনি আর শহরগুলিকে আনন্দ এবং একতার এক সুন্দর স্বপ্নের দেশে রূপান্তরিত করে। যাদুতে বাংলার আবেগকে জীবন্ত করে তোলা দুর্গাপূজা অন্য কোনও কার্নিভালের চেয়ে কোনও অংশে কম নয়, বরং তা এক জীবনের উৎসব যেখানে শিল্প সংস্কৃতি, বন্ধুত্ব, আন্তরিক উষ্ণতা এবং দেবীর প্রতি অবিচ্ছিন্ন একনিষ্ঠতা যা গর্বের সঙ্গে পালন করা হয়। এই উৎসবের আমেজ যা এই মহামারীর প্রকোপের মধ্যেও মিইয়ে যায়নি, সেই উৎসবকে সমৃদ্ধ করতে টাটা কনজিউমার প্রোডাক্টের মার্কি ব্র্যান্ড টাটা টি গোল্ড পশ্চিমবঙ্গের জন্য এক নতুন উৎসব সংস্করণ প্যাক নিয়ে এল।

প্যাকটির ডিজাইনের ভাষা হ’ল সময়ের সাথে উৎসবগুলির উদযাপন। এটি দুটি অত্যন্ত বিশিষ্ট শিল্প শৈলীর দ্বারা অনুপ্রাণিত একটি ফিউশন আর্ট । পাটুয়া শৈলীর ব্রাশ স্ট্রোক এবং প্রাচীন পটচিত্র শিল্পের মিশ্রনে তৈরী এই ডিজাইন সূক্ষ্ম রেখার দ্বারা দৃশ্যমানভাবে পৃথক করা হয়েছে। এই উৎসবের অনন্য জটিল শোলার কাজ, শঙ্খের আওয়াজ , ধুনুচির সর্বব্যাপী সুগন্ধ এবং ঢাকিদের ঢাকের তাল ফুটিয়ে তোলা হয়েছে চিত্রের মধ্যে যা এই উৎসবের প্রতি নিষ্ঠা ,অনুভূতি এবং প্রাণবন্ত উদ্দীপনা প্রকাশ করে । এটি সবার বাড়িতে উৎসবের আনন্দ নিয়ে আসবে এবং বাংলার শিল্প ও সংস্কৃতি উদযাপন করার ও সুযোগ করে দেবে ।

এই প্রসঙ্গে টাটা কনজিউমার প্রোডাক্ট ভারতের প্যাকেজড বেভারেজ এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট – মার্কেটিং শ্রী পুনিত দাস বলেন “টাটা টি গোল্ড উৎসবের সাথে জড়িত ঐতিহ্যবাহী উপাদানগুলির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সময়ের সাথে এই উৎসব পালন করতে আশা রাখে । আমরা আমাদের নতুন উৎসব সংস্করণ প্যাকেজিংয়ের মাধ্যমে এটাই করার চেষ্টা করেছি যা উৎসবটির প্রতি আন্তরিকভাবে শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে এবং একই সাথে রাজ্য ও এই অঞ্চলের প্রচলিত শিল্পকলা ও ঐতিহ্যকেও সম্মান প্রদর্শন করে। “

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।