নয়াদিল্লি: কয়েকটি সাধারণ ট্যুইটের মাধ্যমে শুরু কথোপকথন। সেই কথোপকথনই গিয়ে পৌঁছাল এমন জায়গায়, যখন মৃত্যু ভয় পেতে শুরু করলেন বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন। কার কাছ থেকে আক্রমণের আশঙ্কা করছেন লজ্জা’র লেখিকা?

তিনিও এক মহা বিতর্কিত মুখ। পাক সাংবাদিক মেহর তারার। যিনি আবার প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শশী থারুরের স্ত্রী সুনন্দা পুষ্কর হত্যাকাণ্ডের অন্যতম অভিযুক্ত। বুধবার তসলিমার একটি ট্যুইট দেখে প্রতিক্রিয়া দেন মেহর। সংখ্যালঘুদের ভাবাবেগে আঘাত করতে পারে এমন একটি ট্যুইট করেন তসলিমা। সেই ট্যুইট দেখে তসলিমার বিরুদ্ধে মাইক্রো ব্লগিং সাইটে বিষোদগার শুরু করেন বহু মানুষ। মেহরও তাদেরই একজন। মেহরের দাবি, সস্তা প্রচারের লোভে এরকম ট্যুইট করেন তসলিমা।

আর এতেই চটেন তসলিমা। মেহর তাঁর বিরুদ্ধে বিষোদগার করছেন বলে অভিযোগ করেন তসলিমা। এর পরেই মহা বিতর্কতি ট্যুইটটি করে বসেন তসলিমা। লেখেন, সুনন্দা পুষ্করকে এভাবেই আক্রমণ করেছিলেন মেহর। পরের দিনই খুন হন সুন্দা। মেহর এবার আমায় ট্যুইটারে আক্রমণ করছে। আমি আগামীকালই মরে যেতে পারি। আমার পুলিশি নিরাপত্তা চাই।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।