নয়াদিল্লি: সেনা দিবসে দেশবাসীর জন্য রয়েছে নয়া চমক। চলতি বছর সেনাদিবসের প্যারেডে পুরুষ সেনাদের নেতৃত্ব দেবেন মহিলা সেনা অফিসার। চতুর্থ প্রজন্মের ঐ মহিলা সেনা অফিসারের নাম তানিয়া শেরগিল। যিন ১৫ জানুয়ারি অর্থাৎ বুধবার সেনা দিবস উপলক্ষ্যে পুরুষ সেনাদের প্যারাডে নেতৃত্ব দিতে চলেছেন। একটি সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্টে এই খবর জানা গিয়েছে।

ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশনে স্নাতক তানিয়া শেরগিলকে, ২০১৭ সালের মার্চ মাসে চেন্নাইয়ের সেনা প্রশিক্ষন কেন্দ্র থেকে বাহিনীতে নিযুক্ত করা হয়।তানিয়ার বাবা ছিলেন আর্টিলারিতে কর্মরত। এবং তাঁর দাদু ছিলেন পেশায় শিখ রেজিমেন্টের একজন সেনাকর্মী। সেনা সূত্রে খবর, তানিয়া হল সেনাবাহিনীর প্রথম মহিলা ক্যাপটেন। যিনি এই বছর সেনা দিবস উপলক্ষ্যে সমস্ত পুরুষ সেনাকর্মীদের প্যারেড করাবেন। শুধু তাই নয়, গতবছর প্রজাতন্ত্র দিবসে ক্যাপ্টেন ভাবনা কস্তুরীও সর্বপ্রথম মহিলা অফিসার ছিলেন, যিনি সমস্ত পুরুষ দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

দিল্লির ক্যান্টনমেন্টে অবস্থিত এই প্যারেড গ্রাউন্ডটি হল দেশের মধ্যে সব থেকে বড় প্যারেড গ্রাউন্ড। সূত্রের খবর, ব্রিটিশ শাসনকালে অর্ডার অফ ফিল্ড মার্শাল কেএম কারিয়াপ্পার সম্মানে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রথম কমান্ডার-ইন-চিফ হিসেবে ক্যারিয়াপ্পার নাম অনুসারে ২০১৬ সালে এই প্যারেড গ্রাউন্ডটির নাম রাখা হয়, ক্যারিয়াপ্পা প্যারেড গ্রাউন্ড। এছাড়াও এই প্যারেড গ্রাউন্ডে সেনাদের জন্য বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়েছে। সেগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য অনুষ্ঠান গুলি হল, সেনাদের নিয়ম শৃঙ্খলা, সময়ানুবর্তীতার পাঠ প্রভৃতি।

ফিল্ড মার্শাল কে এম কারিয়াপ্পা ১৯৪৯ সালে সর্বশেষ ব্রিটিশ কমান্ডার স্যার ফ্রান্সিস বুচারের কাছ থেকে, ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রথম সর্বাধিনায়ক হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণের স্বীকৃতি পেয়েছিলেন। সেই থেকেই প্রতিবছর ১৫ জানুয়ারি এই দিনটি সেনা দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। বিশেষ এই দিনটিতে শুধু সেনা প্যারেড প্রদর্শন করা নয়, নানারকম মিলিটারি শোয়ের আয়োজন করা হয়। এছাড়াও দেশের জন্য প্রাণ ত্যাগ করা শহীদ জওয়ানদেরও এদিন স্বরন করা হয়। প্রসঙ্গত, দিল্লি ছাড়াও আরও ছয়টি মিলিটারি হেড কোয়াটারে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।