স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: করোনা আবহে একাধি রদবদল হয়ছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন খড়াই লছুবাড় মহান্তি বাড়ির দুর্গাপুজোয়। সরকারি বিধিনিষেধ মেনেই পুজিত হছেন মা। জমিদারির সেকেলে রাজত্ব আজ আর না থাকলেও রাজবাড়ির দুর্গাপুজোয় আজও রয়ে গেছে।

ইতিহাসের পাতা উল্টালে দেখা যায় বাড়ির আদি কর্তা জিৎনারায়ন মহান্তি স্বপ্ন দেখেন বাড়ির বকুলতলা থেকে উদ্ধার হয় একটি লোহার পিড়ি তার ওপর তিনটি সুপুরি ও একটি তরয়াল বসানো যার মধ্যে রয়েছেন দেবী দূর্গার আর এক রুপ বাসুলীদেবী সেই থেকেই মহান্তি বাড়ির পুজো হয়ে আসছে।

জমিদার বাড়ির কনিষ্ঠ সন্তান ডক্টর অম্বুজ মাহান্তি জানান, গ্রাম ছাড়া এ বাড়ির পুজো অচল । প্রতিবছর গ্রামের লোকের আগমনে গমগম করতো বাড়ির ঠাকুরদালান। এবছর করোনা পরিস্থিতিতে পূজোপ্রায় বন্ধের মুখেই ছিল। গ্রামের ছেলেদের অনুরোধে সাতদিনের মধ্যেই ছোটো আকারের প্রতিমা করে শুধুমাত্র নিয়ম রক্ষার্থে ঝুঁকি নিয়ে পুজোর আয়োজন করা হয়েছে ।

বাড়ির পুরোহিত তরুণ কর বলেন, ” আমরা প্রশাসনিক নিয়ম মেনে মাক্স পরে স্যানিটাইজার নিয়ে পুজো করছি। অঞ্জলির সমস্ত ফুল স্যানিটাইজ করছি গোটা ফল দিয়ে মায়ের ভোগের আয়োজন করেছি।”

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।