চেন্নাই: দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে আসতে শুরু করে আক্রান্ত হওয়ার খবর। এরই মধ্যেই এক অদ্ভুত কাণ্ড ঘটিয়ে বসলেন এক যুবক। কোয়ারেন্টাইন থেকে বেরিয়ে সোজা রাস্তায়। তাও আবার নগ্ন অবস্থায়।

শ্রীলঙ্কা থেকে ফিরে হোম কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন তামিলনাড়ুর থেনি জেলার ১ কাপড়ের ব্যবসায়ী। শুক্রবার রাতে হঠাতই বাড়ি ছেড়ে নগ্ন অবস্থায় রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন ওই যুবক। অভিযোগ, বাড়ির সামনে রাস্তায় শুয়ে থাকা ৯০ বছরের এক বৃদ্ধের গলায় কামড়ে ধরে ওই যুবক। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে ওই বৃদ্ধাকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত যুবক বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন বা মানসিক বিকারগ্রস্ত। সম্প্রতি শ্রীলঙ্কা থেকে ভারতে ফেরেন ওই যুবক। ওই যুবককে হোম কোয়ারান্টিনে থাকতে বলা হয়েছিল। শুক্রবার রাতে হঠাতই বাড়ি ছেড়ে নগ্ন অবস্থায় রাস্তায় দৌড়ে বেরিয়ে পড়ে ওই যুবক। তার বাড়ির সামনে রাস্তায় শুয়ে ছিলেন 90 বছরের এক বৃদ্ধা।

ওই যুবক রাস্তায় বেরিয়ে বৃদ্ধার গলা কামড়ে ধরে। বৃদ্ধার আর্তনাদে ছুটে আসেন স্থানীয়রা। রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় ওই মহিলাকে। স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে বৃদ্ধাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।
বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন ওই যুবককে ধরে ফেলেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

এদিকে, দেশজুড়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৮৩৪। মৃত কমপক্ষে ১৯ জন। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, এভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলে কয়েকদিনের মধ্যেই করোনায় স্টেজ থ্রি-র দিকে চলে যাবে দেশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের বিভিন্ন জায়গায় আরও ১১০ জন নতুন করোনা আক্রান্তের হদিশ পাওয়াতেই সংখ্যাটা ৮০০ পার করে ফেলেছে বলে জানানো হয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রক সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯-এ।

হু-এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, করোনা মোকাবিলায় একটি ভ্যাকসিন তৈরি করা হচ্ছে। কিন্তু এই ভ্যাকসিন তৈরিতে কমপক্ষে ১২ থেকে ১৮ মাস সময় লাগবে বলে জানিয়েছে ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন।

অন্যদিকে করোনা আক্রান্ত দেশগুলির পাশে এসে দাঁড়িয়েছে আমেরিকা। বিশ্বের ৬৪ দেশকে প্রায় ১৪,০০০ কোটি টাকা আর্থিক সাহায্য করতে চলেছে আমেরিকা। এর মধ্যে ভারতের জন্য বরাদ্দ থাকছে ২.৯ মিলিয়ন ডলার বা ২২ কোটি টাকা।

মার্কিন প্রশাসন জানিয়েছে, বিশ্বের যে ৬৪ টি দেশে করোনা আক্রান্ত সবচেয়ে বেশি সেগুলির জন্য এই ১৪,০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। ল্যাবরেটরি, কোয়ারানটিন সেন্টার, করোনা মোকাবিলায় আরও পদক্ষেপ গ্রহণ করতেইব দেওয়া হচ্ছে এই সাহায্য।