সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: ট্রাম্পের ভারতকে এখন ‘বন্ধু’ বলছেন। কলকাতায় তৈরি হয়েছে ট্রাম্প টাওয়ার। এবার মার্কিন মুকুলকই হয়ে উঠছে উত্তর কলকাতার দুর্গা মণ্ডপ তৈরির প্রধান উৎস। সেখান থেকেই আনা হয়েছে ফোম। সেই ফোমই দিয়েই মণ্ডপের অন্দরমহল সাজাচ্ছে টালাপার্ক প্রত্যয়।

পৃথিবীর উপরিতলে কি আছে তা সবার জানা। কিন্তু গ্রহের ভিতরের দিকটা কেমন? কেমনইবা সেখানকার হালচাল। আর সেখানে যদি একটা দুর্গাপুজো হয় তাহলে কেমন হবে? ভেবেছেন কি? শুধু ভাববেই না একদম অতল অনন্তে নিয়ে গিয়ে পরখ করে দেখাবে পাতালপুরীর দুর্গোৎসব।

আরও পড়ুন: মৃত্যুবার্ষিকীতে ফিরে দেখা জোবসের হাত ধরে আসা টেকনোলজির সাতকাহন

এমন দুর্গা পুজো দেখাবে টালাপার্ক প্রত্যয়। উত্তর কলকাতার অন্যতম বড় পুজো প্রত্যেক বছরই চমক দেয়। সেই তালিকাতেই পড়ছে টালার এই পুজো। ৯০ পেরোনো এই পুজো আমেরিকা থেকে ২১ লক্ষ টাকা খরচ করে ফোমের মতো একটি রাসায়নিক বস্তু নিয়ে এসেছে। সেটাই যখন খোলা বাতাসে আনা হচ্ছে তখন রাসায়নিক বিক্রিয়া করে ফোম শক্ত হচ্ছে এবং পাথরের মতো আকার ধারন করছে।

আরও পড়ুন: বধূকে পুড়িয়ে খুনে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড স্বামী ও ভাসুরের

পুজোর অন্যতম সদস্য অভিজিৎ বসাক বলেন, “আমরা মাস পাঁচেক ধরে পুজোর প্রস্তুতি নিয়েছি। তখনই আমরা পৃথিবীর ভিতরের অংশ কেমন ভাবে বোঝাব তা নিয়ে ভাবনাচিন্তা করেছিলাম। ইন্টারনেট মারফত জানতে পারি আমেরিকায় এক ধরনের ফোম পাওয়া যায় যেটা ব্যবহার করা যেতে পারে আমাদের মণ্ডপে। এটা পরিবেশ বান্ধব। বাতাসের সংস্পর্শে এলেই এটা শক্ত হয়ে গিয়ে এমন পাথরের আকার নেয়। ওই সংস্থার ডিলার রয়েছে সাঁতরাগাছিতে। সেখান থেকে আমরা মণ্ডপে নিয়ে এসে অতল অনন্ত বানানোর কাজ সুরু করি।”

আরও পড়ুন: নাগেরবাজার তৃণমূল, সিপিএম, বিজেপির মিছিল আটকে চ্যাম্পিয়ন পুলিশ

মণ্ডপে প্রবেশ করা মাত্রই ব্যাপক ঝাঁকুনি ফিল করবে দর্শক। এটার মাধ্যমে টালা প্রত্যয় বোঝাতে চাইছে যে দর্শক পৃথিবীর ভিতরে প্রবেশ করছে। এরপরের অংশটায় ইন্সটলেশন এবং এরপরেই গর্ভগৃহে প্রবেশ করবে দর্শক। সেখানে দেখা যাবে মায়ের পায়ের তলায় শুয়ে রয়েছে মৃত অসুর এবং পৃথিবীর অতল অনন্তে তখন শান্তির আবহ। এই বিষয়টাই তুলে ধরছে টালা প্রত্যয়।

আরও পড়ুন: কর্ণকে আদালতে পেশ করল পুলিশ