লাহোর: হালকাভাবে নেওয়ার কোনও প্রশ্ন নেই বরং করোনাকে সচেতন ভাবে গ্রহণ করুন। মারণ ভাইরাসকে হারিয়ে অনুরাগীদের উদ্দেশ্যে এমনই আর্জি রাখলেন প্রাক্তন পাক ওপেনার তৌফিক উমর।

শরীরে সামান্য উপসর্গ দেখা দেওয়ায় সপ্তাহদু’য়েক আগে স্বেচ্ছায় স্বাস্থ্য পরীক্ষা করান প্রাক্তন বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান। করোনা পরীক্ষায় রিপোর্ট পজিটিভ আসার খবর অনুরাগীদের সঙ্গে শেয়ারও করে নেন তৌফিক। করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে একা একটি ঘরে নিজেকে বন্দি রেখেছিলেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তৌফিকের কথায়, ‘আমি আমার সন্তান এবং পরিবারের অন্যান্যদের থেকে সম্পূর্ণ নিরাপদে নিজেকে একটি ঘরে আইসোলেশনে রেখেছিলাম। আমি মানুষকে বলবে রিপোর্ট পজিটিভ আসলেও তারা যেন প্যানিক না করেন বরং আমি তাদের বলব তারা যেন হার্ড ইমিউনিটির দিকে নজর দেন।’

একইসঙ্গে সাধারণ মানুষ এবং অনুরাগীদের উদ্দেশ্যে তৌফিকের বার্তা, প্রত্যেকে যেন কোভিড১৯ বিষয়টিকে সচেতনভাবে গ্রহণ করেন। নিরাপত্তা সংক্রান্ত ইস্যুতে সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং বাধ্যতামূলক সকলের জন্য। জানিয়েছেন দেশের জার্সি গায়ে ৪৪টি আন্তর্জাতিক টেস্ট খেলা প্রাক্তন পাক ওপেনার।

ভাইরাসের উপসর্গ শরীরে বিশেষ না থাকলেও হালকা জ্বর অনুভব করায় গত ২৩মে স্বেচ্ছায় করোনা পরীক্ষা করিয়েছিলেন প্রাক্তন এই ক্রিকেটার। ২৪মে পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসায় হোম আইসোলেশনে চলে গিয়েছিলেন তৌফিক। একইসঙ্গে অনুরাগীদের কাছে তাঁর দ্রুত সুস্থতা কামনার জন্য আর্জি জানিয়েছিলেন তিনি।

একাধিক হাই-প্রোফাইল ফুটবলার মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হলেও প্রথম হাই-প্রোফাইল ক্রিকেটার হিসেবে তৌফিকই প্রথম করোনায় আক্রান্ত হন। সপ্তাহদু’য়েকের মধ্যে করোনাকে হারিয়ে তাঁর সুস্থ হওয়ার ঘটনা যদিও ভীষণ ইতিবাচক। তৌফিক সুস্থ হলেও করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে পাকিস্তানের দুই প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটার রিয়াজ শেখ ও জাফর সরফরাজের।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প