শীত যে দোরগোড়ায় কড়া নাড়ছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা৷ হাত-পা ফাটতে শুরু করেছে ইতিমধ্যেই। ক্রিম, বডি ওয়েলের দোকানের ভিড় বাড়ছে ক্রমশ৷ এইমসয়ই যত্ন নিন আপনার ত্বকের৷ শুষ্ক ত্বককে বাগে আনতে তাই শীতের দিনগুলোয় মেনে চলুন কয়কটি ঘরোয়া পদ্ধতি। রইল কিছু টিপস৷

গরম জলের পরিমান
শীত মানেই অল্প জলে ঝুপ ঝুপ স্নান। ঠান্ডার হাত থেকে বাঁচতে গরম জলের ওপর ভরসা করা ছাড়া উপায় থাকে না। কিন্তু মনে রাখবেন জল যেন খুব গরম না হয়। আর কখনওই খুব বেশিক্ষণ হট শাওয়ার বাথ নেওয়া উচিত নয়। এতে ত্বক খুব তাড়াতাড়ি শুষ্ক হয় যায়। ত্বকের উপরিতল ফেটেও যায়।

ময়শ্চরাইজার:
যেহেতু শীতকালে বেশির ভাগ সময়ই আমরা গরম জলে স্নান করি, ফলে ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়ার প্রবণতা থাকে বেশি। তাই হট শাওয়ারের  আগে অবশ্যই ভাল করে ময়শ্চরাইজার মাসাজ করুন। এতে ত্বক নরম থাকবে। তবে বডি ওয়েলও মাসাজ করতে পারেন।

স্ক্রাবিং:
শীতকালে শুষ্ক ত্বকের ওপর ডেড সেল জন্মায়। স্ক্রাবিংয়ের মাধ্যমে ত্বকের এই আস্তরণ নষ্ট করে ফেলা উচিত। ব্রাউন সুগার, মধু এবং অলিভ অয়েল দিয়ে বাড়িতেই বানিয়ে ফেলুন বডি স্ক্রাবার। প্রতিদিন স্নানের আগে ব্যবহার করুন।

ফাটা ঠোঁটের যত্ন:
শীতকালের সবচেয়ে বড় সমস্যা ফাটা ঠোঁট। ঠোঁটে কিছুটা ভেজলিন বা লিপ বাম লাগান। এরপর টুথ ব্রাশ দিয়ে ভাল করে ঠোঁটর উপরিতল স্ক্রাব করুন। শীতকালেও রুক্ষ দেখাবে না আপনার ঠোঁট।

ফাটা গোড়ালির যত্ন:
একটি কাপের এক চতুর্থাংশ লিস্টারিন এবং সমপরিমাণ ভিনিগার মেশান। ইষদোষ্ণ জলে মিশ্রণটি ভাল করে মিশিয়ে নিন। এ বার কিছুক্ষণ এই জলে পা ডুবিয়ে রাখুন। এরপর ফুট ব্রাশ দিয়ে কিছুটা স্ক্রাবিং করে নিলেই দেখবেন শীতকালেও এক্কেবারে পারফেক্ট রয়েছে আপনার পা।

শীতের ফেসপ্যাক:
শীতকালে মধু আর দুধের কোনও বিকল্প নেই। ৬ টেবল চামচ দুধের সঙ্গে ২ টেবল চামচ মধু মিশিয়ে নিন। এ বার এই প্যাকটি সম্পূর্ণ মুখ ও ঘাড়ে ভাল করে লাগিয়ে নিন। ২০ মিনিট রাখুন। শুকিয়ে গেলে ইষদোষ্ণ জলে ধুয়ে ফেলুন। নিজেই তফাৎটা বুঝতে পারবেন।

হাতের পরিচর্যায় লেবু-চিনি:
লেবুর রসের সঙ্গে কিছুটা চিনি মিশিয়ে নিন। এ বার ভাল করে স্ক্রাবিং করুন। মিশ্রণটি শুকিয়ে না যাওয়া পর্যন্ত রাখুন। এরপর ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের শুষ্ক ভাব কমবে। ডেড সেলগুলোও নষ্ট করবে এই স্ক্রাব।

রাতের ফেস মাস্ক:
রাতে মাস্ক ব্যবহার করা খুবই ভাল। এতে সম্পূর্ণ ময়শ্চরাইজড হয় আপনার ত্বক। ১ টেবল চামচ মধু ১ টেবল চামচ টম্যাটো জুসের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি রাতে মেখে শুয়ে পড়ুন। সকাল উঠে তফাৎটা নিজেই বুঝতে পারবেন। সপ্তাহে একদিন করে ট্রাই করুন এই ফেস মাস্ক।